Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
Home / জাতীয় / ভারত-বাংলাদেশ আলোচিত সামরিক চুক্তিতে যা রয়েছে
samorik-chukti

ভারত-বাংলাদেশ আলোচিত সামরিক চুক্তিতে যা রয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চার দিনের ভারত সফরে দেশটির সঙ্গে ৩৬টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এসবের মধ্যে অন্যতম প্রতিবেশী দেশটির সঙ্গে হওয়া সামরিক সহযোগিতা স্মারক সই।

এরই মধ্যে এই সমঝোতা স্মারক নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি বলছে- এই চুক্তি সই করে সরকার দেশকে ভারতের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে।

অন্যদিকে সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা বলেন দেশ বিক্রি করে দিয়েছি তারা অর্বাচীন। তাদের অন্য উদ্দেশ্য আছে।
বাংলাদেশ-ভারতের হওয়া সামরিক সমঝোতা স্মারক নিয়ে কী আছে তা নিয়ে মুখ খোলেননি কেউ। সই করা সমঝোতা স্মারকে ৬টি বিষয়ে সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে।

সেগুলো হলো-
১. সামরিক খাতে ঋণ সহযোগিতা (লাইন অব ক্রেডিট)
২. সামরিক সহযোগিতা
৩. যৌথ প্রশিক্ষণ উদ্যোগ ও বিনিময়
৪. প্রতিরক্ষা শিল্প সহযোগিতা
৫. প্রতিরক্ষা গবেষণা সহযোগিতা
৬. উচ্চ পর্যায়ের সহযোগিতা

১. সামরিক খাতে ঋণ সহযোগিতা বা লাইন অব ক্রেডিট। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশকে ৫শ’ মিলিয়ন ডলারের ঋণ সহযোগিতা দেবে ভারত। এ অর্থ দিয়ে দিল্লি থেকে যেকোনো ধরনের সামরিক সরঞ্জাম কিনতে পারবে ঢাকা।

ভারত থেকে পাওয়া এই ঋণের অর্থ দিয়ে বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের জন্য জাহাজ, আকাশ প্রতিরক্ষায় ব্যবহৃত সেন্সর এবং নৌবাহিনীর শিপইয়ার্ডের সক্ষমতা বাড়ানোর কাজে ব্যবহার করবে।

২. সামরিক সহযোগিতা। এতে বলা হয়েছে, নিজেদের দক্ষতা ও কর্মপরিধি অনুসারে আন্তর্জাতিক আইন, নিজ নিজ দেশের জাতীয় আইন ও পরিস্থিতির আলোকে দুই দেশ নিজেদের মধ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা বাড়াবে।

৩. যৌথ প্রশিক্ষণ উদ্যোগ ও বিনিময়। এতে কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে-
ক. পারস্পরিক আলাপ আলোচনার ভিত্তিতে প্রশিক্ষণের জন্য দুই দেশের সামরিক প্রতিনিধি প্রেরণ।
খ. সামরিক বাহিনীর সদস্যদের জন্য প্রশিক্ষণের আয়োজন, বিশেষজ্ঞ প্রশিক্ষক, তথ্য ও পাঠ্যসূচি বিনিময়।
গ. সামরিক যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণে পারস্পরিক সহযোগিতা।
ঘ. সামরিক বাহিনী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসার ব্যবস্থা। সামরিক বাহিনীর জন্য খেলাধুলার ব্যবস্থা, দুর্যোগ মোকাবেলা ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনায় প্রশিক্ষণ।
ঙ. সামরিক ইস্যু নিরসনে আলোচনার জন্য কর্মকর্তা পর্যায়ে বৈঠক। সামরিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে বাৎসরিক ভিত্তিতে সভা।
চ. পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে দুই দেশ নৌজাহাজ এবং এয়ার ক্রাফট ভ্রমণের আয়োজন।
ছ. পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে দুই দেশ আন্তর্জাতিক সমুদ্রসীমানায় যৌথ নৌমহড়ার আয়োজন করবে।

৪. প্রতিরক্ষা শিল্প খাতের সহযোগিতায় যৌথ উদ্যোগ। এতে বলা হয়েছে, পরস্পরকে প্রতিরক্ষা শিল্প খাতে সহযোগিতা দেয়া হবে। স্পেস টেকনোলোজিতে সহযেগিতা, সমুদ্র অবকাঠামোর উন্নয়নে অভিজ্ঞতা বিনিময় এবং কারিগরি সহযোগিতা।

৫. প্রতিরক্ষা গবেষণা সহযোগিতা। এই সমঝোতা স্মারকে বলা হয়েছে, প্রতিরক্ষা প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ ও ভারত পরস্পরকে সহযোগিতা করবে। প্রশিক্ষণ, তথ্য বিনিময় এবং সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানী প্রকোশলীদের সফর বিনিময়ের মাধ্যমে এই সহযোগিতা করা।

৬. উচ্চ পর্যায়ের সহযোগিতা। বাৎসরিক ভিত্তিতে সামরিক বাহিনীর প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার পর্যায়ে বৈঠক। এছাড়া প্রতিরক্ষা সচিব পর্যায়ে বৈঠক করে সামরিক ইস্যু নিয়ে আলোচনা করা। (সূত্র- আরটিভি)

বার্তা কক্ষ

Leave a Reply