Home / চাঁদপুর / চাঁদপুরের বর্ণিল আয়োজনে জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালিত হবে
Mujib-Borsho

চাঁদপুরের বর্ণিল আয়োজনে জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালিত হবে

চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে স্থানীয় পর্যায়ে বছরব্যাপী কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১ জুলাই) বিকেল ৪টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রশাসন, রাজনীতিক, শিক্ষক, সাংস্কৃতিকর্মী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ব্যক্তিদের নিয়ে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খানের সসভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শওকত ওচমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ.জামাল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল,

চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এএসএম দেলওয়ার হোসেন, জেলা পরিষদ সচিব মো. মিজানুর রহামান, স্বাধীনতা প্রদক প্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার এমএ ওয়াদুদ, পুরাণবাজার ডিগ্রি জর অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শরীফ চৌধুরী, ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ হোসেন, গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্বাছ উদ্দিন, আক্কাছ আলী রেলওয়ে একাডেমীর প্রধান শিক্ষক গোফরান আহমেদ, কণ্ঠশিল্পী রুপালি চম্পক, লেখক ডা. পীয়ূষ কান্তি বড়ুয়াসহ সকল উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তাগণ।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান তার বক্তব্যে বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালনে জাতীয় পর্যায়ের বছরব্যাপী নানা কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। জাতীয় কর্মসূচীর সাথে সঙ্গতি রেখে চাঁদপুরের যথাযথ এবং অত্যান্ত বর্ণিলভাবে আমরা জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালন করবো।

প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজস্বভাবে কর্মসূচী পালন করবে। আমরা একটি প্রকাশনা বের করবো। এই কর্মসূচীতে চাঁদপুরের সকল সাংস্কৃতিক ও সাহিত্য সংগঠনকে সম্পৃক্তা করা হবে। আমরা চাই আমাদের এই আয়োজন থেকে নতুন প্রজন্ম জাতির জনককের সম্পর্কে আরও বেশী জানুক এবং তা ধারণ ও লালন করুক।

তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা স্বাধিন সার্বভৌম বাংলাদেশে পেয়েছি। তাঁর অবদান আমরা আমৃত্যু কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ রাখবো। আমরা চিরকাল এই মহান নেতার জন্যে গর্বিত থাকবো। আপনারা যে প্রস্তবনা দিয়েছেন তার জন্যে আপনাদের ধন্যবাদ জানাই।

সভায় বক্তারা বিভিন্ন প্রস্তাবনা রাখেন। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, জেলার সকল স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর জীবন ও আদর্শের উপর আলোচনা সভা, রচনা প্রতিযোগীতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা। জেলার প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও স্থানকে বর্ণিলভাবে সজ্জিত করা, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে রচনা, প্রবন্ধ, নিবন্ধ, কবিতা, গল্প, ছড়া দিয়ে একটি টাউস সাইজের প্রকাশসা কের করা ইত্যদি।

প্রতিবেদক- আশিক বিন রহিম
১ জুলাই ২০১৯

ইন্টারনেট কানেকশন নেই