Home / চাঁদপুর / চাঁদপুরে বিক্ষুব্দ শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময়ে যা বললেন প্রশাসন

চাঁদপুরে বিক্ষুব্দ শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময়ে যা বললেন প্রশাসন

চাঁদপুরে নিরাপদ সড়ক চেয়ে বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময় করেছে জেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার (২ আগষ্ট) বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় জেলা প্রশাসক, পুলিশ প্রশাসন, সরকার দলীয় জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক এবং বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীদের প্রায় ৩০জনের একটি প্রতিনিধি দল উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খানের সভাপতিত্বে সভার শুরুতেই নিরাপদ সড়ক চেয়ে বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা তাদের ১২টি দাবীসহ অন্যান্য যোক্তিক দাবী লিখিত আকারে তুলে ধরেন।

পরে তাদের দাবির সাথে একাত্ত্বতা পোষন করে বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লা আল মাহমুদ জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল,

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক মির্জা জাকির, জেলা বিআরটিএর উপ-পরিচালক শেখ মো. ইমরান, জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম রোমান, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রবিন পাটওয়ারী, শ্রমীক নেতা আবুল কালাম প্রমুখ। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর সরকারি কলেজের ছাত্র সাদ্দাম মাহামুদ ও ফাতেমাতুজ জোহরা।

বিক্ষুব্দ ছাত্র-ছাত্রীদের লিখিত দাবিগুলোর মধ্যে ছিলো আমাদের আন্দোলন সরকার বা কোন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। আমাদের আন্দোলন একটি নিরাপদ সড়কের জন্যে। আমরা অস্বাভাবিক ভাবে সড়ক দূর্ঘটনার কবলে পড়ে মত্যু বা পঙ্গুত্ববরণ করতে চাই না।

এসময় তারা তাদের ১০টি লিখিত দাবি উত্থাপন করেন। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য দাবিগুলো হলো : সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের সকল দায়ভার সরকারকে নিতে হবে, বেপরোয়া ড্রাইভারকে সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে সংবিধানে আইন প্রণয়ন করতে হবে, যানবাহনে সিটের অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া যাবে না, চাঁদপুুরের সকল রুটে শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে হবে, চাঁদপুরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে স্পিড বেকার নির্মান করতে হবে।

ছাত্র-ছাত্রীদের রাস্তা পারাপারের যথাযথ ব্যবস্থঅ গ্রহণ করতে হবে, ফিটনেস বিহীন যানবাহন রাস্তায় চলাচল করতে পারবে না, এবং লাইসেন্স বিহীন চালকরা গাড়ি চালাতে পারবে না, ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদানে সকল দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে এবং ট্রাফিক পুলিশের দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে,

চাঁদপুর শহরের সকল মোড়ে ট্রাফিক পুলিশের ব্যবস্থা করতে হবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে হর্ন বাজানো যাবে না এবং শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে এবং বিভিন্ন সময়ে সরকারি মন্ত্রী-এমপিসহ দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীণ কথাবার্তা বন্ধ করতে হবে এবং ছাত্রদের আন্দোলনে পুলিশী হামলা বন্ধ করতে হবে।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যেই তোমাদের সকল দাবি মেনে নিয়েছে। এখন সারা দেশের ন্যায় চাঁদপুরে আমরাও দাবিগুলো বাস্তবায়ন করতে সর্বোচ্চ আন্তরিক রয়েছি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পরে দেশটাকে এটি কল্যাণকর রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্টিত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

আর শিক্ষার্থীদের যে কোনো বিষয়ে তিনি আলাদা নজর দিচ্ছেন। শিক্ষার মানোন্নয়নসহ শিক্ষার্থীদের জন্য সরকার নানাভাবে কাজ করে যাচ্ছে। চাঁদপুরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও আমরা শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সুবিধা-অসুবিধাগুলো দেখছি এবং তাদের পাশে থাকার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমরা প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালি করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, তোমাদের দাবিগুলোকে আমরা সম্মানের সাথে মেনে নিয়েছি। এখন থেকে চাঁদপুরে লাইসেন্স বিহীন চালকদের আর জরিমানা নয় সোজা জেলে দেয়া হবে। তবে তোমাদের কাছে আমাদের অনুরোধ আর কোনো আন্দোলনে নয়। বাইরের কেউ যাতে তোমাদের ভেতরে প্রবেশ করতে না পারে সেদিকে তোমরা নজর রাখবে।

পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম বলেন, তোমরা শিক্ষার্থীরা যে দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমেছো তা আমাদেরও দাবী। কারণ রাস্তায় তোমাদের মতো আমার সন্তানও চলাচল করে। তোমাদের দাবিগুলো সরকার মেনে নিয়েছে। আমরা তা বাস্তবায়নে আন্তরিকতার সাথে কাজ করবো। কিন্তু তোমরা কারো ভূল প্ররচনায় রাস্তায় রাষ্ট্র কিংবা জনগণের ক্ষতি হয় এমন কাজ করবে না। বাংলাদেশের কোথায় কি হচ্ছে তা আমাদের দেখার বিষয় না। চাঁদপুরে আমরা অনেক ভালো অবস্থানে রয়েছি।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমাদের ছোট্ট একটা দেশ। তাই অনেক সিমাবদ্ধতা থাকতে পারে। তবুও জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশটাকে সঠিকভাবে নেতৃত্বে দিয়ে অনেক দূর নিয়ে গেছে। যুদ্ধের মাঝে কোনো সমাধান হয় না। সমাধান হয় আলোচনার মাধ্যমে। তাই তোমাদের যদি কোনো দাবি থাকে তা আমাদের কাছে লিখিত জানাতে পারতে। যা হোক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তোমাদের সকল দাবি মেনে নিয়েছে। এখন আর তোমারা কোনো আন্দোল সংগ্রাম করো না।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা বাস-ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি শাহির হোসেন পাটোয়ারী, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর নাছির উদ্দিন ভূইয়া, চাঁদপুর জেলা ছাত্র লীগ সভাপতি আতাউর রহমান পারভেজ, সহ-সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম মিলন, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি এ কে আজাদ, সাধারণ সম্পাদক তালহা জুবায়ের প্রমুখ।

প্রতিবেদক : আশিক বিন রহিম

Leave a Reply