Home / সারাদেশ / সারাদেশে কর মেলা শুরু ১৪ নভেম্বর
Tex--mela
ফাইল ছবি

সারাদেশে কর মেলা শুরু ১৪ নভেম্বর

করসেবা প্রদান ও কর সচেতনতা বাড়াতে দশমবারের মত সারাদেশব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড । আগামি ১৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার থেকে মেলা শুরু হবে। এবারের মেলার শ্লোগান হচ্ছে ‘সবাই মিলে দেব কর,দেশ হবে স্বনির্ভর’এবং প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘কর প্রদানে স্বতঃস্ফ’র্ত অংশগ্রহণ, নিশ্চিত হোক রুপকল্প বাস্তবায়ন’।

রাজধানী ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরে সপ্তাহব্যাপি মেলা চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত। ঢাকায় মেলা হবে মিন্টো রোডের অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে। এ ছাড়া সব জেলা শহরে ৪ দিন এবং ৪৮টি উপজেলায় দু’দিন মেলা হবে। পাশাপাশি উপজেলা পর্যায়ে ৮টি গ্রোথ সেন্টারে এক দিন ভ্রাম্যমাণ মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর সেগুনবাগিচা রাজস্ব ভবন সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এনবিআর চেয়ারম্যান মো.মোশাররফ হোসেন ভূইয়া এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন,‘প্রতিবছরের মত করদাতারা এবারের মেলায়ও আয়কর বিবরণীর ফরম দাখিল থেকে শুরু করে কর পরিশোধের জন্য ব্যাংক বুথ পাবেন। তাঁদের জন্য মেলায় সহায়তাকেন্দ্রে অপেক্ষা করবেন কর কর্মকর্তারা। একই ছাদের নিচে সব সেবা মিলবে। করদাতা শুধু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে আনলেই হবে।’

তিনি জানান, মেলায় ই-টিআইএন নিবন্ধন ও আয়কর বিবরণী গ্রহণ, কর পরিশোধ,আয়কর বিবরণী পূরণে সহায়তা এবং কর শিক্ষা প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা থাকবে।
চেয়ারম্যান বলেন,কর-রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে আয়কর মেলা অনুপ্রেরণামূলক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেখানে করদাতারা উৎসবমূখর পরিবেশে আয়কর বিবরণী দাখিল ও কর পরিশোধ করতে পারেন। তাই প্রতিবছর মেলার পরিধি বিস্তৃত হচ্ছে।

করদাতাদের সুবিধার্তে এবারের মেলায় কর সংক্রান্ত সকল তথ্য সম্বলিত একটি ওয়েবসাইট এবং কর পরিশোধে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

ওয়েবসাইট থেকে আয়কর বিবরণী ফরম ও চালান ফরম ডাউনলোড করার পাশাপাশি সব ধরনের নিদের্শিকা পাওয়া যাবে। তাই করমেলার ন্যায় অধিকাংশ সুবিধা ঘরে বসেই ভোগ করতে পারবেন করদাতারা।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মোশাররফ হোসেন বলেন,যারা বেশি আয়কর দেন,তারা যেন স্বচ্ছতার সাথে সেটি পরিশোধ করেন, এজন্য আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। যেসব একাউন্টিং ফার্ম তাদের করের হিসাব করেন, সেসব ফার্মের হিসাব কার্যক্রম অডিট করা হবে। যদি কোন ফার্ম হিসাবের ক্ষেত্রে অনিয়ম করেন,তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, চলতি করবর্ষে ৩০ লাখ আয়কর বিবরণী দাখিল হবে বলে প্রত্যাশা করছে এনবিআর।

প্রসঙ্গত, এবার মেলাও বরাবরের মত নতুন করদাতারা ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর নিতে পারবেন। আবার পুনঃ নিবন্ধন করে ই-টিআইএন নিতে পারবেন পুরনো করদাতারা। এ ছাড়া মেলায় ই-পেমেন্টের জন্য পৃথক বুথ থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা,নারী,প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য থাকবে আলাদা বুথ।

আগামি বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর হোটেল রেডিসন ব্লুওয়াটার গার্ডেনে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জাতীয়ভাবে সেরা করদাতাগণকে ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান করা হবে। প্রতিবছর ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত আয়কর বিবরণী জমা দেওয়া যায়। বাসস

বার্তা কক্ষ,১২ নভেম্বর, ২০১৯

ইন্টারনেট কানেকশন নেই