Home / চাঁদপুর / প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর শুরু : চাঁদপুরে পরীক্ষার্থী ৫২ হাজার
examinition-19
ফাইর ছবি

প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর শুরু : চাঁদপুরে পরীক্ষার্থী ৫২ হাজার

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর সারা দেশে শুরু হবে। সূচি অনুযায়ী আগামি ২৪ নভেম্বর পরীক্ষা শেষ হবে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন আজ বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় এবার ২৫ লাখ ৫৩ হাজার ২৬৭ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেবে। এর মধ্যে ছাত্র ১১ লাখ ৮১ হাজার ৩০০ জন এবং ছাত্রী ১৩ লাখ ৭১ হাজার ৯৬৭ জন।

পাশাপাশি ৩ লাখ ৫০ হাজার ৩৭১ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৮৭ হাজার ৮২ জন ছাত্র এবং ১ লাখ ৬৩ হাজার ২৮৯ জন ছাত্রী ইবতেদায়ি সমাপনি পরীক্ষায় অংশ নেবে স। প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, দেশব্যাপি ৭ হাজার ৪৫৮টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ৮ টি দেশে ৬১৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেবে।

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনিতে ১৭ নভেম্বর ইংরেজি,১৮ নভেম্বর বাংলা,১৯ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়,২০ নভেম্বর প্রাথমিক বিজ্ঞান,২১ নভেম্বর ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এবং ২৪ নভেম্বর গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনিতে ১৭ নভেম্বর ইংরেজি,১৮ নভেম্বর বাংলা, ১৯ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং বিজ্ঞান,২০ নভেম্বর আরবি,২১ নভেম্বর কুরআন মাজিদ ও তাজবিদ এবং ২৪ নভেম্বর গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তিন ঘণ্টাব্যাপি পরীক্ষা সকাল সাড়ে ১০ টায় শুরু হবে। (ইউএনবি)

প্রাথমিক সমাপনিতে চাঁদপুরে ১৫৬ কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী ৫২ হাজার ৪ শ’৭৩ জন

চাঁদপুরের সকল উপজেলায় এক ও অভিন্ন নিয়ম-কানুনে স্ব-স্ব উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ সরকারি বিধিমালায় এ পরীক্ষা পরিচালিত হবে। চাঁদপুরে ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে ১ শ’৫৬ কেন্দ্রে প্রাথমিক-এবতেদায়িতে ৫২ হাজার ৪ পরীক্ষার্থী ৭৩ জন অংশ নিচ্ছে। চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় ১৫৬ কেন্দ্রে ৫২ হাজার ৪শ ৭৩ জন । এর মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৫ হাজার ৬ শ’১৬ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৬ হাজার ৮ শ’৫৭ জন ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের দেয়া তথ্য মতে,চাঁদপুরে ১ হাজার ১শ’১১ টি প্রাথমিক-এবতেদায়ি প্রতিষ্ঠানের এবারের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫২ হাজার ৪শ’৭৪ জন ।

পরীক্ষা সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে সম্পন্ন করতে বেশ ক’ টি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কর্তব্য পালন করবে এমন শিক্ষকদের তালিকা অনুমোদন,কক্ষ পরিদর্শক নিয়োগ,পরিদর্শন টীম ও মেডিক্যাল টীম গঠন,ফৌজদারি কার্যবিধি জারি আইন-শৃংখলা রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ পূর্বের মতই হবে ।

পরীক্ষা কক্ষে কোনো পর্যবেক্ষক মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না। প্রতি কেন্দ্রে ১ জন কেন্দ্র সচিব, ১ জন হল সুপার,২ জন পুলিশ ও ৩ জন গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতি ২৫ জন অনুপাতে ১ জন শিক্ষক হল পর্যবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রাপ্ত পরিসংখ্যান মতে,চাঁদপুর সদরের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৮ হাজার ৮শ’৭৫ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৬৪ জন । কেন্দ্র ২৪ টি। কচুয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৬ হাজার ৯শ ৬০ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৩২শ’ ৭৮ জন । কেন্দ্র ১৫ টি ।

হাজীগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৬ হাজার ১ শ’১৮ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ১শ ৮ জন । কেন্দ্র ২২ টি হাইমচরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ হাজার ১ শ’৩৯ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ শ’ ৮২ জন । কেন্দ্র ৮ টি ।

শাহারাস্তি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৫ শ’ ১০ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৭শ’৭৩ জন । কেন্দ্র ১৬ টি । ফরিদগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৭ হাজার ২ শ’ ১০ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৫শ’১৫ জন। কেন্দ্র ২৯ টি ।

মতলব দক্ষিণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ হাজার ৯ শ’৬১ জন এবং ইবতেদায়ী পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ শ’৯৫ জন । কেন্দ্র ১৬ টি। মতলব উত্তরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ হাজার ৮ শ’৪৪ জন এবং ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৩শ’ ৩৬ জন । কেন্দ্র ২৫ টি। জেলার সব উপজেলার সব কেন্দ্রে এক ও অভিন্ন নিয়ম নীতিতে পাবলিক পরীক্ষার মতই এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো.শাহাব উদ্দিন চাঁদপুর টাইমসকে বলেন,‘ চাঁদপুরের সকল উপজেলার সমাপনি পরীক্ষার প্রস্ত্ততি সম্পন্ন হয়েছে। এবিষয়ৈ চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কার্যালয়ে সরকারি নীতিমালা বাস্তবাযনে একটি সভা জেলা প্রশাসক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণের নির্দেশে স্ব-স্ব উপজেলার ১ম ও ২য় শ্রেণির কর্মকর্তাগণ একটি করে কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণে থাকবেন। জেলা ও উপজেলায় পরীক্ষা শুরু থেকে শেষ দিন পর্যন্ত নিযন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন,‘পাশের উইনিয়নের শিক্ষকগণ হল পর্যবেক্ষণ করবেন । প্রতি ২৫ জন শিক্ষার্থী জন্যে ১ জন পর্যবেক্ষক দাযিত্ব পালন করবেন । কোনো পর্যবেক্ষক পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে পরীক্ষা কক্ষে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না।’

আবদুল গনি, ১৪ নভেম্বর ২০১৯