Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
Home / কৃষি ও গবাদি / চাঁদপুরে ২ হাজার ৮ শ’ মে.টন বোরো ধান বীজ বরাদ্দ
magna-dan

চাঁদপুরে ২ হাজার ৮ শ’ মে.টন বোরো ধান বীজ বরাদ্দ

চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় চলতি (২০১৮-১৯) রবি মৌসমে ২ হাজার ৮শ’১৪ মে.টন বোরো ধান বীজ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ খামার বাড়ি, চাঁদপুর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এ সব ধানের বীজ মধ্যে বিআর ১৪ , ৪৩ টাকা কেজি দরে, আর ১৬, ৪৩ টাকা কেজি দরে, বিআর ২৬, ৪৩ টাকা কেজি দরে, ব্রিধান ২৮, ৪৩ টাকা কেজি দরে, ব্রিধান ২৯, ৪৩ টাকা কেজি দরে , ব্রিধান ৫০, ৫৩ টাকা কেজি দরে , ব্রিধান ৫৫, ৪৩ টাকা কেজি দরে , বিধান ৫৮, ৪৩ টাকা কেজি দরে, ব্রিধান ৬৩, ৪৩ কেজি দরে সরকারিভাবে বিক্রির এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে । স্ব স্ব উপজেলার হাট-বাজারের ডিলারগণ এ বীজ কৃষকগণের নিকট বিক্রি করবে বলে চাঁদপুর বীজ বিতরণ কেন্দ্র জানান।

চাঁদপুর সদরে ৩’শ ৮৮ মে.টন, হাইমচরে ৭’শ৭৯ মে.টন, ফরিদগঞ্জ ২’শ ৯৯মে.টন, শাহারাস্তিতে ৩’শ ৯০ মে.টন, কচুয়াতে ২’শ ২১ মে.টন, মতলব উত্তরে ২’শ ৫০ মে.টন, মতলব দক্ষিণে ২’শ মে.টন এবং হাজীগঞ্জে ২’শ ৮৩ মে.টন।

প্রসঙ্গত , ২৫ লাখ জনসংখ্যা অধ্যূষিত চাঁদপুর জেলার অধিকাংশ মানুষ কৃষিজীবি। ধান ,গম ,আলু, সরিষা পাট, সয়াবিন, আখ, অভিন্ন শাকসবাজ চাঁদপুর জেলার প্রধান ফসল। কৃষি পরিবেশ অঞ্চল ১০, ১৬, ১৭, ১৯ এর আওতাভুক্ত। জেলার বর্তমান ফসলের নিবিরত ১৯১%।

চাঁদপুর সেচ প্রকল্প ও মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্প নামে দ’ ুটি প্রকল্প জেলার ৪ উপজেলা সদর,ফরিদগঞ্জ, মতলব উত্তর, হাইমচরে ২৩ হাজার ৩ শ’ ৯০ হেক্টর জমি রয়েছে। জেলার খাদ্যের প্রয়োজন ৪ লাখ ১২ হাজার ৯ শ’ ৯৪ মে. টন। বিগত দিনে খাদ্য ঘাটতি ছিলো প্রকট। উন্নত উৎপাদন প্রযুক্তি চালুকরণ ও আধুনিকতার আবাদের মাধ্যমে বর্তমানে খাদ্য উৎপাদন হচ্ছে ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৯শ’ ৩২ মে. টন। খাদ্য উৎপাদনে সরকার বিদ্যুৎ ও সার ভত’র্কি এবং ব্যাংকগুলো সহজ শর্তে কৃষিঋণ বিতরণ করছে।

গবেষণালব্ধ জ্ঞান ও কৃষকের উদ্ভাবিত নিজস্ব উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সীমিত সম্পদ কাজে লাগিয়ে ও বিশেষ বিশেষ কার্যক্রম গ্রহণের ফলে কৃষকের আর্থিক দৈন্যতা ক্রমান্বয়ে দূর হচ্ছে। অত্র জেলার সকল কৃষি কর্মীগণ বিশেষ কার্যক্রমকে স্বাভাবিত কর্মের পাশাপাশি আবশ্যক পালনীয় কর্তব্য হিসেবে গ্রহণ করেছে।
বিশেষ করে অধিদপ্তরের মহা পরিচালকও পরিচালক সরোজমিনে উইং এর আগ্রহ ও পরামর্শে প্রযুক্তি হস্তান্তরের পাশাপাশি স্থানীয় উন্নত জাতের ফসল
উৎপাদন , এলাকা ভিত্তিক ফসলের আবাদ, বিলুপ্ত প্রায় ফল ও উপকারি বৃক্ষরোপণ, ভিটামিন ও পুষ্টি সমৃদ্ধ ফলের আবাদ,রাসায়নিক সারের বিকল্পে প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে ফসলের বালাই দমন প্রভূতি কার্যক্রমে অধিক গুরুত্ব সহিত হাতে নেয়া হয়েছে।

এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর , চাঁদপুর জেলার সমন্বয়ে কৃষি ক্ষেত্রে উন্নয়নের নিমিত্তে কাজ করে যাচ্ছে ও ইতিমধ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ আরম্ভ করা হয়েছে।

চাঁদপুর জেলার কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তর কর্তৃক গৃহীত কৃষি বিষয়ক পরিকল্পনা সফল বাস্তবায়ন জেলার খাদ্য ঘাটতি পূরণ, দারিদ্রমোচন ও পুষ্টির অভাব দূরীকরণসহ খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

প্রতিবেদক : আবদুল গনি
২৬ নভেম্বর, ২০১৮ সোমবার

শেয়ার করুন

Leave a Reply