Home / চাঁদপুর / শাহরাস্তিতে ৫০ হাজার টাকায় ছেলেকে বেচে দিলেন মাদকাসক্ত বাবা

শাহরাস্তিতে ৫০ হাজার টাকায় ছেলেকে বেচে দিলেন মাদকাসক্ত বাবা

চাঁদপুর শাহরাস্তি উপজেলার ইছাপুরা গ্রামের চার বছর বয়সী পুত্র সন্তানকে মাত্র ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দিয়েছেন হারুনুর রশিদ নামের মাদকাসক্ত বাবা।

পরে শিশু জাহিদুল হোসেনের মা আয়েশা আক্তার শাহরাস্তি থানায় মামলা করলে শাহরাস্তি মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোশারফ হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ি থানার রাজিবপুর গ্রাম হতে ভিকটিম জাহিদকে সৌদিআরব প্রবাসী মোশাররফ হোসেনের ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় সোমবার (৭ আগস্ট) সকালে শিশুটির ক্রেতা প্রবাসী মোশাররফ হোসেনের হাসিনা বেগমকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। তবে ঘটনার পর থেকেই শিশুটির বাবা হারুনুর রশিদ পলাতক রয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহরাস্তি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূর হোসেন জানান, ‘রোববার (৬ আগস্ট) শিশুটির মা আয়েশা বেগম মানবপাচার আইনে মামলা মামলা দায়ের করেন। এতে শিশুটির বাবা হারুনুর রশিদ ও ক্রেতা হাসিনা বেগমকে আসামি করা হয়েছে।’

এ ব্যাপারে আয়েশা বেগম বলেন, ‘আমার স্বামী হারুন নেশাগ্রস্থ ও বেকার। নেশার টাকা জোগাড় করতে সে প্রায়ই ঘরের জিনিসপত্র বিক্রি করে দিতো। গত বৃহস্পতিবার ছোট ছেলেকে দোকান থেকে কিছু কিনে দেওয়ার নামে বাড়ি থেকে নিয়ে বিক্রি করে দেয়।’

শাহরাস্তি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, ‘ইছাপুরা গ্রামের হারুনুর রশিদ টাকার লোভে তার পুত্র সন্তান জাহিদুল হোসনেকে বিক্রি করে দেয়। পরে জেলা পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারের নির্দেশে নোয়াখালী জেলোর সোনাইমুড়ী থানা এলাকার রাজীবপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে স্থানীয় রাশেদের স্ত্রী হাসিনা বেগমের কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয় এবং হাসিনা বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়।’

তিনি আরও জানান, ‘শিশুটির বাবা কয়েকটি বিয়ে করেছে। তবে সে মাদকাসক্ত কিনা, তা এখনও নিশ্চিত করে বলা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা সার্বিক বিষয়টি তদন্ত করছি।’

ওসি মিজানুর রহমান জানান, ‘উদ্ধারের পর শিশুটিকে আমরা আদালতে পাঠিয়েছি। আদালত শিশুটিকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন।’

আটক হাসিনা বেগম বলেন, ‘আমি তিন কন্যা সন্তানের জননী। একটি ছেলে সন্তানের আকাঙ্খা দীর্ঘদিনের। আমাদের পূর্ব পরিচিত হারুন বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) বাড়িতে এসে হাজির হন। তার ছোট ছেলেকে আমার কাছে দিতে চান। বিনিময়ে ১ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে সন্তানটিকে রেখে হারুন চলে যান।’

প্রতিবেদক : মাহবুবুল আলম, শাহরাস্তি
: আপডেট, বাংলাদেশ ০৭ : ২৬ পিএম, ৭ আগস্ট ২০১৭, সোমবার
এইউ

শেয়ার করুন
x

Check Also

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত

চট্টগ্রাম, ...