Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
Home / লাইফস্টাইল / শীতকাল হাত গরম রাখার উপায়

শীতকাল হাত গরম রাখার উপায়

কিছু মানুষের হাত সারা বছরই ঠাণ্ডা থাকে। তবে স্বাভাবিক অবস্থায় শীতকাল তাপমাত্রা কম থাকায় শরীরে প্রাকৃতিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে হাত ঠাণ্ডা থাকে। এই সময় শরীরকে উষ্ণ রাখা গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, স্বাভাবিক তাপমাত্রা সত্ত্বেও হাত ঠাণ্ডা থাকা অন্য কারণেও হতে পারে। অ্যানিমিয়া, ভিটামিনের অভাব, অটোইমুনের অবস্থা এবং হাইপোথাইরয়েডিজমও হতে পারে এর কারণ।

কিছু কার্যকর ব্যবস্থায় এই সময় আপনিও আপনার হাত গরম রাখতে পারেন। নিচে দেওয়া হলো হাত গরম রাখার কিছু টিপস।

১। অ্যানিমিয়া
হাতে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত প্রবাহের ক্ষেত্রে হিমোগ্লোবিনের অভাব হলে আপনার হাত ঠাণ্ডা হতে পারে। অ্যানিমিয়া আপনাকে অবসন্ন ও দুর্বল করে ফেলতে পারে। আর অ্যানিমিয়া হয় আয়রন ঘাটতি হলে। তাই, শীতে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ এ ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।

২। ঠাণ্ডা তাপমাত্রা
বায়ুমণ্ডলে তাপমাত্রা কম থাকলে হাতও যে ঠাণ্ডা থাকবে এটি একটি সাধারণ ব্যাপার। কিন্তু আপনাকে অবশ্যই ফ্রস্টবাইট সম্পর্কে সতর্ক হতে হবে। ফ্রস্টবাইট ত্বক ও এর অন্তর্নিহিত টিস্যুগুলো জমাটবদ্ধ করে ফেলে। অতিরিক্ত ঠাণ্ডা তাপমাত্রায় ফ্রস্টবাইট মুহূর্তে আপনার ত্বক আক্রান্ত করতে পারে। যদি ফ্রস্টবাইট আপনার ত্বককে আক্রান্ত করার প্রথম পর্যায় অতিক্রম করতে পারে তবে তা ত্বক, পেশি, টিস্যু এবং হাঁড়ের স্থায়ী ক্ষতির কারণ হতে পারে।

৩। রক্তপ্রবাহ কমে যাওয়া
এটি এমন একটি অবস্থা যার কারণে শরীরের কিছু অংশ বিশেষ করে হাত-পায়ের আঙ্গুলগুলো ঠাণ্ডায় অবশ হয়ে আসতে পারে। রক্তপ্রবাহ কমে যাওয়া বা রাইনডসের আক্রমণ রক্তচাপকে সংকীর্ণ করে এবং রক্ত সঞ্চালনকে প্রতিরোধ করে। এমনকি এতে ত্বক নীল ও লাল রং ধারণ করতে পারে। আক্রমণ শেষ হয়ে গেলে আঙ্গুলগুলো স্বাভাবিক হয়ে যায়। এ সময় শরীরে ঝাঁকুনি ও উত্তেজনা অনুভূত হতে পারে। এ জন্য কোনো চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না, তবে বেশি অস্বস্তি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।

৪। ভিটামিন বি -১২’র অভাব
ভিটামিন বি -১২’র অভাবে হাত ঠাণ্ডা হতে পারে। ভিটামিন বি -১২’র অভাবে হাত এবং পায়ের পাতায় অসাড়তা, ঠাণ্ডা এবং অস্বস্তিকর অনুভূতির মতো স্নায়বিক সমস্যা হতে পারে। ভিটামিন বি -১২’র অভাবে অ্যানিমিয়া, দুর্বলতা, ক্লান্তি, মুখের অস্বস্তি এবং বিষণ্নতার ঝুঁকি রয়েছে। এ জন্য খেতে পারেন মাছ, মাংস, ডিম, দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্য।

৫। লুপাস
লুপাস হলো একটি দীর্ঘস্থায়ী অটোইমিউন রোগ যা প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে। এটি হতে পারে আপনার হাত ঠাণ্ডা হওয়ার কারণও। শরীরের রোগ প্রতিরোধ পদ্ধতি অস্বাভাবিক হয়ে ওঠে এবং স্বাস্থ্যকর টিস্যু আক্রান্ত হয়। লুপাসে শরীরের কিডনি, ত্বক, হাঁড়ের সংযোগ এবং রক্তকোষে প্রদাহ সৃষ্টি হতে পারে।

৬। হাইপোথাইরোডিজম
থাইরয়েড সমস্যায়ও হাত ঠাণ্ডা হতে পারে। থাইরয়েড গ্রন্থি যথেষ্ট হরমোন উৎপাদন করতে না পারলে হাইপোথাইরোডিজম হয়। এতে শরীরের ওজন বৃদ্ধি, ক্লান্তিভাব, স্ফীত মুখ, ত্বকের শুষ্কতা, চুলের ক্ষতি, বিষণ্নতা, হৃদরোগ, স্থূলতা এবং প্রজননে সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

৭। ধূমপান
ধূমপান রক্ত সঞ্চালনকে আক্রমণ করে। এতে হাত ঠাণ্ডা হতে পারে। ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক এবং ক্যান্সারের শীর্ষ কারণগুলির মধ্যে একটি।

ঠাণ্ডা হাত গরম রাখবেন কীভাবে?
১। রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধির জন্য হাত পা ছুড়ে ব্যায়াম করতে পারেন।

২। দুই হাত বোগলে রাখলে উপকার পাবেন।

৩। হাত-পায়ের আঙ্গুলগুলো পরস্পরের সঙ্গে লাগিয়ে রাখুন।

৪। বাড়তি উষ্ণতার জন্য গ্লাভস পরিবর্তে দস্তানা ব্যবহার করুন।

৫। সহনীয় গরম পানিতে হাত চালান যতক্ষণ না ভালো বোধ করেন, তারপর পুরোপুরি শুকিয়ে নিন।

৬। গরম চা আপনার ঠাণ্ডা হাতে উষ্ণতা আনতে সাহায্য করতে পারে। (এনডিটিভি)

বার্তা কক্ষ
১২ ডিসেম্বর,২০১৮

শেয়ার করুন

Leave a Reply