Home / বিনোদন / বাবার গিটার হাতে মঞ্চে কাঁদলেন তাজোয়ার আইয়ুব

বাবার গিটার হাতে মঞ্চে কাঁদলেন তাজোয়ার আইয়ুব

যে শহর থেকে গিটারের জাদুকর আইয়ুব বাচ্চুর যাত্রা শুরু হয়েছিল, সেই শহরে তার অনুপস্থিতিতে প্রথম কনসার্টে এলআরবির হয়ে বাবার গিটার হাতে তুলে নিলেন ছেলে তাজোয়ার। গাইলেন আইয়ুব বাচ্চু জনপ্রিয় গান ‘সেই তুমি কেন এত অচেনা হলে’।

বুধবার রাত পৌনে ১০টায় হাজার হাজার দর্শকের প্রতীক্ষা মিটিয়ে মঞ্চে এল তাদের প্রিয় এলআরবি। কিন্তু এই প্রথম ছিলেন না তাদের ব্যান্ডলিডার আইয়ুব বাচ্চু। ২০ অক্টোবর এই এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের অদূরে জমিয়তুল ফালাহ মসজিদ মাঠেই হয়েছিল আইয়ুব বাচ্চুর শেষ জানাজা।

প্রিয় শিল্পীকে শেষ বিদায় দিয়ে তার রেখে যাওয়া এলআরবিকে স্বাগত জানাতেই যেন বুধবার গ্যালারি আর মাঠ ছাপিয়ে হাজার হাজার দর্শক জড়ো হয়েছিল এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের আশেপাশে।

শিল্পী কৌশিক হোসেন তাপস এলআরবিকে আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, “বাচ্চু ভাইকে ছাড়া স্টেজে দাঁড়ানো কত কঠিন একটি কাজ। সাহস দিয়ে তাদের স্টেজে ডাকবেন আপনারা। ভালোবেসে আমন্ত্রণ জানাবেন আপনারা।

“আপনাদের হয়ে এলআরবি’র সকল সদস্যকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। দ্য শো মাস্ট গো অন- বাচ্চু ভাই বলে গেছেন। উনি আপনাদের ঘরের ছেলে। সবাই দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। এটা বাচ্চু ভাইয়ের ঘর।”

এরপর তিনি স্টেজে ডেকে নেন আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে আনাফ তাজোয়ার আইয়ুব এবং মেয়ে ফায়রুজ সাফরাকে। কালো সানগ্লাসে চোখ ঢাকা তাজোয়ার কান্না চেপে বলেন, “আমার বাবা আজ নেই। তবে এমনভাবে আজ আমরা সবাই মিলে গাইব, যেন উপর থেকে তিনি শুনতে পান।”

মেয়ে ফায়রুজ সাফরা বলেন, “আপনাদের গলা শুনে আব্বু যেন বলে- আমি এই তো আছি, তোমাদের সাথে আছি।” এরপর এলআরবির সদস্য স্বপন বলেন, “দীর্ঘ ৩৬ বছর পর প্রথমবারের মতো বস, বাচ্চু ভাইকে ছাড়া স্টেজে উঠতে হয়েছে। এটা কখনও কল্পনায় ছিল না।”

আরেক সদস্য রুবেল বলেন, “উনি আমাদের মাঝে আছেন। উনাকে আপনাদের কাছে দিয়ে গেলাম।” এলআরবির ম্যানেজার শামীম আহমেদ বলেন, “বাচ্চু ভাইয়ের স্বপ্ন পূরণ করতে আমরা এগিয়ে যাব। চিটাগাংকে উনি খুব ভালোবাসতেন। আপনারা প্রমাণ করে দিন চিটাগাং রক ল্যান্ড।”

এলআরবি সদস্য মাসুদ বলেন, “এখান থেকেই বস সারা দুনিয়া জয় করেছেন। এখান থেকেই এলআরবি আবার পুর্নজন্ম হবে।” সবশেষে তাপস বলেন, যে চট্টগ্রাম থেকে জন্ম নিয়ে পুরো পৃথিবী জয় করেছেন। আজ সেখান থেকে এলআরবির আরেক জন্ম হতে চলেছে।

এরপর মাসুদ ও তাপস হাজারো কণ্ঠের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে গেয়ে ওঠেন- ‘আর কত এভাবে আমাকে কাঁদাবে, আর বেশি কাঁদালে উড়াল দেব আকাশে’। এ গানের পর ব্যান্ড শিল্পী মানাম আহমেদ স্টেজে এসে আইয়ুব বাচ্চুর উদ্দেশে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর দ্বিতীয় গানে বেজে ওঠে সেই চিরচেনা সুর। ‘সেই তুমি কেন এত অচেনা হলে’। গলা মেলালেন তাজোয়ার আইয়ুব।

শেষে তাপসের আহ্বানে খালি গলায় ‘তুমি কেন বোঝ না’ যখন গাইছেন তখন সবার চোখে জল। গান শেষ হওয়ার পরও তাজোয়ার তার বোনকে জড়িয়ে ধরে কাঁদছিলেন। ততক্ষণে সব শিল্পীরা উঠে এসেছেন মঞ্চে। তাদের চোখেও জল। এভাবেই শেষ হয় বাচ্চুবিহীন চট্টগ্রামে প্রথম কনসার্ট।

এর আগে সন্ধ্যায় মাইজভান্ডারি মরমী গোষ্ঠীর গান দিয়ে শুরু হয় এই কনসার্ট। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ‘শেকড়ের সন্ধানে মেগা কনসার্ট’ এর আয়োজন করা হয়।

কনসার্টে অংশ নেন শিল্পী হৃদয় খান, রিংকু, রেশমী, শামীম, কৌশিক হোসেন তাপস, বাউল শিল্পী কুদ্দুস বয়াতি, চিশতী বাউল ও ফকির শাহাবুদ্দিন। যোগ দেন বিভিন্ন দেশ থেকে আগত যন্ত্র শিল্পী এ্যানা রেকিটা, শিবামনি, এনটন, ম্যালি, আরশাদ খান, সিনান, এনা ভাইব ও রিদম শাহ।

বিনোদন ডেস্ক

শেয়ার করুন

Leave a Reply