Home / শীর্ষ সংবাদ / চাঁদপুরে ২শ’১৫টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু

চাঁদপুরে ২শ’১৫টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু

চাঁদপুরের প্রত্যন্ত এলাকায় ২১৫ টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু রয়েছে। যা স্বাস্থ্যসেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে অসামান্য অবদান রেখে চলছে ।

বর্তমান সরকার সবার জন্যে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ব্যাপক কাজ করছে। বিশেষ করে পল্লীর প্রত্যন্ত অঞ্চলে সবার কাছে সেবা পৌঁছে দিতে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো প্রধান ভূমিকা রাখছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্পগুলোর মধ্যে কমিউনিটি ক্লিনিক একটি। পল্লীর জনগোষ্ঠীর কমিউনিটি ক্লিনিক চালু থাকায় স্বাস্থ্যসেবায় ব্যাপক সফলতা অর্জন করছে। ক্লিনিকগুলোতে আন্তরিক পরিবেশে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়। সম্পূর্ণ সরকারিভাবে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের মাধ্যমে

পল্লী অঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নত করছে। দৈনিক গড়ে ৪০- ৫০ জন রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। এর মধ্যে সাধারণ রোগী সেবা, বাচ্চাদের শূন্য থেকে ৫ বছর পর্যন্ত সেবা,গর্ভবতী মায়েদের ডেলিভারী সেবাসহ বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা সেবা রয়েছে।

মাসে দু’বার ৩০ প্রকারের ওষুধ দেয়া হয়। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত স্বাস্থ্য সেবা দিতে কমিউনিটি ক্লিনিক গুলো খোলা রাখতে নির্দেশ রয়েছে ।

জাতীয়ভাবে ঘোষিত চাঁদপুর জেলার ৮ উপজেলায় ৮৯ ইউনিয়নে যেথানে কোনো সরকারি বা বেসরকারি হাসপাতাল নেই ও অর্ধ-ঘন্টার মধ্যে একজন গর্ভবতী মা খুব স্বাভাবিকভাবেই হেঁটে আসতে পারে এমন স্থানে প্রতি ৬ হাজার পল্লী এলাকার হতদরিদ্র মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দোরগোঁড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে একটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনের পর ২শ’১৫ টি কমিউনিটি ক্লিনিক বর্তমানে চালু রয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে-চাঁদপুর সদরে ৪৪টি, কচুয়ায় ৩৫টি, শাহারাস্তিতে ২২টি,হাজীগঞ্জে ১৭টি,মতলব দক্ষিণে ১৬টি,মতলব উত্তরে ৩৫ টি,হাইমচরে ৯ টি এবং ফরিদগঞ্জে ৩৭টি কমিউনিটি ক্লিনিক বর্তমানে চালু রয়েছে।

এসব ক্লিনিকগুলোতে পল্লী জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে এটি একটি মাইলফলক। এসব ক্লিনিকগুলোতে প্রতি মাসে গড়ে ১৫ থেকে ১৬ সহস্রাধিক রোগী চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকে।

প্রতিদিন গড়ে ১৫-১৬ সহস্রাধিক শিশু,কিশোর-কিশোরী, গর্ভবতী মা ও তার,সন্তান প্রসবকালীন সময় ও পরে, নবজাতক শিশু,বৃদ্ধ-বৃদ্ধা এ কমিউনিটি ক্লিনিকগুলি থেকে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করছে। কোনো কোনো জটিল রোগীকে তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কিংবা ঢাকায় রেফার করে থাকে। আর্সেনিক আক্রান্ত রোগী, জ্বর,সর্দি,কাশি.আমেশয়.ডায়রিয়া,এ্যাজমা,কীটপতেঙ্গের কামড়ের চিকিৎসা,পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক পরামর্শ ও ব্যবস্থা প্রদান প্রভৃতি কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো থেকে সেবা পাচ্ছে।

এ ছাড়াও জাতীয় টিকাদান কর্মসূচিসহ ৬ টি অত্যাবশকীয় টিকা প্রদান করা হয়। এখানে সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত স্বাস্থ্য বিভাগীয় কর্মী ও ২ শ’ ১০ জন হেলথ প্রোভাইডর নিয়োজিত রয়েছে। প্রতি মাসে সরকারিভাবে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের ৩০ প্রকারের ঔষধ দু’বারে প্রদান করা হয়। যা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে রোগীদের দেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯-২০০০অর্থবছরে তৎকালীন আ’লীগ সরকার প্রধান শেখ হাসিনা সারা দেশব্যাপি পল্লী এলাকায় প্রতি ৬ হাজার হতদরিদ্র মানুষের জন্য স্বাস্থ্যসেবা দোরগোঁড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে বারান্দাসহ ৬ শত্যাংশ ভূমির ওপর একটি আর্সেনিকমুক্ত টিওবেল বা কলসহ ৪ লাখ ২৪ হাজার টাকা ব্যয়ে দু’কক্ষ বিশিষ্ট একটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

২০০০-২০০১ অর্থবছর পর্যন্ত ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করার পর পরবর্তী সরকার পরিবর্তনের ফলে বাকিগওলো নির্মাণ কাজ ভেস্তে যায় ।
গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গীপাড়ার পাটগাতি ইউনিয়নের ডিমাভাঙ্গা গ্রামে দেশের প্রথম কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ হয়। এটি ২৬ এপ্রিল ২০০০ সালে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সে সময়ে চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় ২শ’৯১টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণের প্রস্তাব স্বাস্থ্যবিভাগ গ্রহণ করে। এর মধ্যে নির্মাণ করা হয়েছিলো ২শ’২৪ টি। ৮টি মেঘনানদীর কবলে বিলীন হযে যায় ।বর্তমানে চালু রয়েছে ২ শ’১৫ টি।

প্রতিবেদক : আবদুল গনি
আপডেট, বাংলাদেশ সময় ৪:১০ পিএম,১৫ জুন ২০১৭, বৃহস্পতিবার
ডিএইচ

শেয়ার করুন
x

Check Also

পদক পাচ্ছেন মহাপরিচালকসহ ৬০ সদস্য

বাংলাদেশ ...