Home / ফিচার / কর্মহীন ও বেকারদের পুনর্বাসনে পদক্ষেপ নিন
jahagir ...

কর্মহীন ও বেকারদের পুনর্বাসনে পদক্ষেপ নিন

অনিশ্চিত ও অসম্ভব জীবন নিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে মানুষজন। মানুষের জীবনযাত্রায় স্পষ্ট অশনি দেখা দিয়েছে। এ সময় মূলত: কর্মজীবী মানুষের কর্মহীনতাই প্রধান বিষয়বস্তু হয়ে দেখা দিয়েছে। সারাবিশ্ব এখন করোনার ছোবলে কুপোকাত। করোনা মোকাবেলার জন্য অসহিষ্ণু ও সমন্বয়হীনতাই প্রধান অন্তরায় হিসেবে দেখা দিয়েছে। তাই কর্মহীন ও বেকারদের পুনর্বাসনে পদক্ষেপ নিন ।

বাংলাদেশ, আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, ইরান, ইরাকসহ প্রভৃতি উন্নয়নশীল দেশই নয় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, স্পেন, ইতালি, রাশিয়ার মতো উন্নত দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানগণ সঠিক কর্মপন্থা উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হয়েছে। ধৈর্য্যরে বাধকে তোয়াক্কা না করেই লকডাউন তুলে দিয়েছে কয়েকটি উন্নত দেশ। খোদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে করোনাভাইরাসের অতি মহামারি থাকা সত্ত্বেও লকডাউন তুলে দিয়ে পূর্বের মতো স্বাভাবিক জীবনযাপন ফিরে যেতে চেয়েছে। মহামারি আরও তুঙ্গে উঠে গিয়ে শেষ পর্যন্ত বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাকে যোগ্যতা নিয়ে ভর্ৎসনা করছে। চীনকে করোনা উৎপাদনের স্বর্গরাজ্য বলে সারাবিশ্বকে ছবক দিচ্ছে। চীন এবং বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাকে বেকায়দায় ফেলে দিতে এখন স্বাস্থ্যপরীক্ষাকে পাত্তা দিচ্ছেনা।

এটা চীনকে সামলাতে হবে এমন মনোভাবকে বিদ্ধ করাতে চাইছে বিশ্বকে। বৈশ্বিক বাজারের সাথে পাল্লা দিতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে অনেকটা সকল কিছু খুলে দেয়া হয়েছে। সেজন্যে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকবে কেন,তাই যুক্তরাষ্ট্রকে অনুসরণ করারই নামান্তর মনে হচ্ছে লকডাউন তুলে স্বাভাবিক জীবনযাপন চলে আসতে।

বাংলাদেশে চিকিৎসাব্যবস্থার অপ্রতুলতা,অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা, ঝুঁকিপূর্ণ ব্যবসা সবকিছু মিলে ত্রাহী ত্রাহী অবস্থা বিরাজিত। মানুষের জীবিকা নিশ্চয়তা করতে না পারা এ বিষয়টি বড় করে সামনে আসলেও কারণ অন্য জায়গায়। কর্পোরেট ব্যবসায়ী, বড় বড় ব্যবসায়ী, বিদেশি বানিজ্য চক্রের পরামর্শ হেতু এসব সিদ্ধান্ত। ফলে করোনা বিস্তার দমকা হাওয়ার মতো বইছে। এখন চিকিৎসাহীন হয়ে মরার পথ ধরেছে বিত্তশালীসহ এলিট পর্যায়ের লোকজন।

এর উত্তরণের পথ ধূসরবর্ণে দ্রবীভূত।মানুষের অর্থনৈতিক মন্দায় বিভিন্ন কলকারখানা,কোম্পানী ও এনজিও থেকে শ্রমিক ছাটাই হয়েছে এ পর্যন্ত কয়েক হাজার। এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে গার্মেন্ট শ্রমিক ছাটাই হয়েছে অন্তত ১০হাজার। গার্মেন্ট শ্রমিক নেতারা দাবী করছেন মে পর্যন্ত ৬০-৭০হাজার গার্মেন্ট শ্রমিকের চাকরী চলে গেছে। দেশে ৪০লাখ শ্রমিক রয়েছে। প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে ২কোটি লোক এ পেশার উপর নির্ভরশীল। বিদেশি শ্রমিক ফেরত এসেছে-প্রায় ১৭হাজার জন। ফেরত আসাই সম্ভাবনা ৭লাখ।

করোনা পরিস্থিতি সারাবিশ্ব বেসরকারি সংস্থা রিফউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিসার্চ ইউনিটের প্রাপ্ততথ্য মতে, জোর করে ফেরত পাঠানো হচ্ছে প্রবাসী শ্রমিককে।এর অধিকাংশই মধ্যপ্রাচ্য ফেরত। শুধু তাই নয় মালদ্বীপ, নেপাল, ভুটান থেকেও অভিবাসী শ্রমিক দেশে ফিরে এসেছে।এর কারনে বাংলাদেশ রেমিট্যান্স বঞ্চিত হবে ২২%। মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলো বাংলাদেশ সরকারকে তাগাদা দিচ্ছে অবৈধ শ্রমিকদের ফিরিয়ে নিতে। এ সংক্রান্ত চিঠিও পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ে পাঠানো হচ্ছে। এদিকে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) অধীনে ১৬০০কোম্পানী রয়েছে।

তন্মধ্যে ৩১২টির অধীনে ৮০হাজার ভিসা প্রক্রিয়াধীন যাতে করে ছুটিতে আসা শ্রমিকরা বিদেশে যেতে পারেন, কোম্পানীগুলো সে চেষ্টায় আছে। যদি মোকাবেলা করতে না পারে তাহলে ১কোটি ২০লক্ষ শ্রমিকের পরিবার চূড়ান্ত অনিশ্চয়তায় পড়বে। প্রবাসীরা প্রতি মাসে গড়ে ১২-১৩হাজার কোটি টাকা দেশে আয় করে পাঠান। কিন্তু করোনা প্রভাবে গত এপ্রিল মাসে প্রায় ৮হাজার ৮শ ৬৪কোটি টাকা পাঠিয়েছেন। গত তিন বছরে এ আয় সর্বনিম্ন ছিল।

প্রতিমাসে নতুন করে ৫০হাজার শ্রমিক বিদেশ পাড়ি জমালে বছরে হয় কমপক্ষে ৬ লাখ। উপরন্তু ২লাখ শ্রমিক ছুটিতে এসে আর যেতে পারছেননা। করোনা দুর্যোগে প্রায় ৭লাখ বিদেশি শ্রমিক কর্মহীন হয়ে বাংলাদেশে এসে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রায় ৭৫ভাগ শ্রমিক মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলোতে কাজে নিয়োজিত। মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলো এ মহামারিতে বিপজ্জনক অবস্থায় থাকায় বাংলাদেশের জন্যও বড় ধরণের শঙ্কার বিষয়। এটা দীর্ঘায়িত হলে বিদেশ ফেরত শ্রমিকের ঢল নামার আলামত লক্ষ করা গেছে।

প্রবাসীরা দেশে আসবে এরপর বেকার খাতায় নাম দিবে। আয় রোজগার কমে গিয়ে করোনা আক্রমন আর দুর্ভিক্ষ আক্রমন অতিবিভীষিকাময় করে তুলবে। তখন দুটো মহামারি সামলানো অসম্ভবই হবে।

বিদেশি শ্রমিকরা নিজ দেশে চলে আসতে পারে-এ বিষয়টি মাথায় রেখে সরকারের বুদ্ধিমত্তা দিয়ে কৌশল হাতে নিতে হবে। যাতে করে বাংলাদেশই দৃষ্টান্ত হতে পারে। সভ্যতা না থাকলে ক্ষমতা থাকা কিংবা ক্ষমতায় যাওয়ার কোন পরিকল্পনা অর্থহীন ও অন্তসারশূণ্যই ঠেকছে। সভ্যতা বাঁচাতে প্রকৃতির সাথে সমন্বয় করে বেঁচে থাকতে সকলের একাট্টা হওয়া জরুরি।

দেশে কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রমিক ও বিদেশ ফেরত শ্রমিকদের পুনর্বাসন করতে এবং অর্থনীতি চাকা সচল রাখতে এ দেশেই কৃষিভিত্তিক কলকারখানার প্রতি জোর দিতে হবে। শুধু কৃষিভিত্তিকই নয় বর্তমান বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে কাজ করতে প্রযুক্তি নির্ভর কলকারখানা প্রতিষ্ঠা করাও এ সময়ে প্রয়োজন।

কলকারখানাগুলো অবশ্যই রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করতে হবে,যাতে করে আয়কৃত সকল অর্থই রাষ্ট্রীয় আয়ের সাথে সরাসরি যোগ হয়।এর জন্য সমাজতান্ত্রিক সমাজ ও সাম্যবাদী সমাজ প্রতিষ্ঠা প্রয়োজন পড়েনা। পুঁজিবাদী সমাজ রক্ষা করতেই এ প্রকল্প হাতে নিতে হবে। ব্যক্তিমালিকানায় হলে ব্যক্তি তার পরতা অনুযায়ী কারখানা চালু রাখে কিংবা লে অফ করে। এতে শ্রমিকের চাকরি থাকলো কি থাকলোনা এসব তার কাছে অর্থহীনই বটে।

কিন্তু সরকার এটা করেনা পুনর্বাসন ছাড়া। সে কারনেইতো বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক দুঃসাহসিকভাবেই আগাম ঘোষণা দিয়েছেন যে, শ্রমিক ছাঁটাই করা হবে। তার যুক্তি ৫৫শতাংশ গার্মেন্ট ব্যবসা পিছু টান দিয়েছে। কিন্তু এটা তিনি বেমালুম ভুলেই গেছেন স্বাধীনদেশে ৪০-৫০বছর এ ব্যবসা করে অগণিত টাকার মালিক হয়েছেন,বৃহদায়তন অট্টালিকা,দামী গাড়ি,বাড়ি এবং বিভিন্ন রকমের কারখানার মালিক হয়েছেন যে জীর্ণশীর্ণ শ্রমিক কর্মচারীর অবদানে। শ্রমিক ছাটাইয়ের আগে এসব মালিকদের আমলনামা জানার অধিকার জনগণের আছে।

নচেৎ অব্যাহত শ্রমিক ছাটাই গোটা পুঁজিবাদী রাষ্ট্রটাই অতিসংকটে পতিত হবে এবং একটা মহামারির মতোই অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দিবে। অর্থনীতির অচলায়তন রুখে দিতে আমি একজন নাগরিক হিসেবে একটা প্রস্তাব দিতেই পারি কিন্তু তা অমূলকও হবেনা। সেটি হলো সরকারি উদ্যোগে দুগ্ধ খামার প্রতিষ্ঠা করা। এটি দেশের প্রতিটি উপজেলায় পতিত জমিগুলোতে প্রতিষ্ঠা করা যায়।

প্রতিটি উপজেলার প্রয়োজনে কয়েকটি স্থানে মোট ৫হাজার গরুর কয়েকটি খামার দেয়া যেতে পারে। প্রতিটি উপজেলায় অন্তত ৩০/৩৫কোটি টাকা বরাদ্দ করলে এটা সম্ভব। এ প্রকল্পের জন্য সারাদেশে ১৫/১৬হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া যেতে পারে। এ হিসাব কমবেশি হতে পারে। তবে বড় ধরনের হেরফের হবেনা। পুরোটাকা এবং এ সমপরিমান টাকা তিনবছরের মধ্যে আয় করা সম্ভাবনা আছে। এর ফলে দুধ ও মাংসের সংকট যেমন গুছে যাবে এবং এর দামও অনেক কমে যাবে। মানুষের পুষ্টি ঘাটতি অনেকটা কমে যেতে সহায়ক হবে। পাশাপাশি বিস্তর পরিমান অর্থাপার্জনতো আছেই। এ রকম প্রতিবছর বিভিন্ন বিষয়ে ৫টি করে পদক্ষেপ নিলে বেকারের পরিমান ১০বছর পর খুঁজে পাওয়া দুস্কর হবে।

তাহলেই আমরা বেকারত্ব অভিশাপ থেকে রেহাই পাবো এবং বড়ধরণের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির যাত্রায় পৌঁছে যাবো। কিন্তু যখন আমরা সাধারণ জনগণ কর্মহীনদের পুনর্বাসনের কথা বলছি ঠিক সে মুহুর্তে খোদ সরকারই রাষ্ট্রায়াত্ত্ব ২৫টি পাটকল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে।

এতে করে ২৬ হাজার শ্রমিকবেকার হবে।শিল্পকারখানাগুলোর আশে-পাশে যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে সেগুলোও বন্ধ হয়ে যাবে। এর ফলশ্রুতিতে ন্যুনতম আরও ৩ হাজার লোক কর্মহীন হয়ে পড়বে। এটাকে বাস্তবায়ন ঘটাতে গবেষণাসংস্থা পিআরআই এর সরকারী তোষণ পোষণ হতবাক হওয়ার মতোই।

সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর গণমাধ্যমকে জানান,”সরকারি সব পাটকল বন্ধ করে দেওয়ার চিন্তা সরকারের খুব ভাল উদ্যোগ। তবে পিপিপির মাধ্যমে আবার চালুর সঠিক চিন্তা হচ্ছেনা।এর মাধ্যমে ভাল কিছু না হওয়ার আশঙ্কাই বেশি। আদমজী জুটমিল বন্ধের মতো সব মিল সম্পূর্ণ বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এরপর স্বচ্ছ এবং উন্মুক্ত প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বেসরকারী খাতে ছেড়ে দিলে ভাল চলবে শিল্প উৎপাদন। আদমজীতে শ্রমিক কাজ করতো তার চেয়ে অন্তত ১০ গুণ শ্রমিক কাজ করত সেখানে এর চেয়ে ভাল উদাহরণ কিছু হতে পারেনা।” তার এ বক্তব্য সুস্পষ্টযে, বেসরকারিখাতকে সমর্থন করা ও একধরণের তেলামী করা। শ্রমিককে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেয়া এবং উৎপাদন ব্যবস্থার বারোটা বাজিয়ে দেয়ারই মনোভাব।

এ সময়ে কলকারখানা বন্ধের সরকারকে এ রকম সিদ্ধান্ত থেকে বের হয়ে আসতে হবে এবং শিল্পকারখানার দুর্নীতি বন্ধ করতে প্রশাসনব্যবস্থাকে জোরদার করতে হবে। দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ করতে কর্মহীন ও বেকার যুবকদের পুনর্বাসন করার পরিকল্পনা একটা সুচিন্তিত পদক্ষেপ হবে বলে পর্যবেক্ষক মহল মনে করেন। কোনোভাবেই যাতে কর্মহীন ও বেকারদের পুনর্বাসন করণ অসম্ভব না হয় সে পদক্ষেপ গ্রহণ করা যে একান্তই কর্তব্য হয়ে পড়েছে সরকারের।

লেখক পরিচিতি : জাহাঙ্গীর হোসেন, কবি ও প্রাবন্ধিক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন,কেন্দ্রীয় কমিটি। মোবাইল- ০১৬২৭ ৮৪০৪৯৫ , ১৩ জুলাই ২০২০

ইন্টারনেট কানেকশন নেই