Home / উপজেলা সংবাদ / কচুয়া / একটি স্থায়ী ভবনই পাল্টাতে পারে সাচার পুলিশ ক্যাম্পের চিত্র
জরাজীর্ণ ভবনে সাচার পুলিশ ক্যাম্প, পাশে পরিত্যক্স খাস জমি

একটি স্থায়ী ভবনই পাল্টাতে পারে সাচার পুলিশ ক্যাম্পের চিত্র

নানা সমস্যায় জর্জরিত কচুয়ার সাচার বাজার পুলিশ ক্যাম্প ,একটি স্থায়ী ভবনই পাল্টাতে পুলিশ ক্যাম্পের চিত্র।

পুলিশকে বলা হয় জনগণের বন্ধু। কিন্তু সেই পুলিশ বন্ধুই যদি সমস্যায় থাকে তাহলে তো কথাই থাকে না। জনবল, স্থায়ী ভবন, গ্যাস সংযোগ, পুলিশ সদস্যদের থাকা, ডাইনিং রুম, ইনচার্জ থাকার সমস্যা ও চাহিদা অনুযায়ী পুলিশ সদস্য না থাকায় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে নানান সমস্যায় বোঝা মাথায় নিয়ে চলছে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার সাচার বাজার পুলিশ ক্যাম্প।

আর এসব অন্তহীন সমস্যা নিয়ে চলছে এ পুলিশ ক্যাম্পটি। ইউনিয়ন পরিষদের জায়গায় অবস্থিত এ ক্যাম্পে একটু বৃষ্টি না আসতেই বৃষ্টির পানিতে কক্ষ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যায়

জানাগেছে, ১৯৮১-৮২ সালের কোন এক সময়ে কচুয়া উপজেলার উত্তর জনপদের সাধারন মানুষের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে সাচার বাজারে প্রাণ কেন্দ্র এ অস্থায়ী ক্যাম্পটি স্থাপন করা হয়।

সাচার দক্ষিণ বাজারের ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন পশ্চিম পাশে অবস্থিত ক্যাম্পটি দীর্ঘ ৩৪ বছর অতিবাহিত হলেও এ ক্যাম্পটিকে স্থায়ী ক্যাম্প/পুলিশ ফাঁড়ি হিসেবে করার উদ্যেগ নেয়া হয়নি।

অথচ বছর কয়েক পূর্বেও এ অঞ্চলের মানুষ চুরি, ছিনতাই ও বড় ধরনের নাশকতায় পড়তে হত। কিন্তু পুলিশ ক্যাম্পটি স্থাপনের পর দায়িত্বশীল পুলিশ ইনচার্জদের ভূমিকার কারণে দেশের দক্ষিণাঞ্চল নোয়াখালী, লক্ষীপুর, চাঁদপুরসহ কয়েকটি জেলার মানুষ দিব্বি আরামে এ রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে আসছে।

সাচার বাজার পুলিশ ক্যাম্পের বর্তমান দায়িত্বরত ইনচার্জ (এসআই) মো. মোস্তফা চৌধুরী চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ‘বর্তমানে এ ক্যাম্পে ১জন উপপরিদর্শক (এসআই), ১জন সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই), ২জন নায়েক, ১১জন কনস্টেবল রয়েছে। কিন্তু এটি পুলিশ ফাঁড়ি হলে এখান ২০ জন কনস্টেবল থাকতো।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল এ ক্যাম্পে যোগদান করি। যোগদানের পর থেকে ১,২ ও ৩নং ইউনিয়নবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ কর আসছি। আমি যোগদানের পর কোথাও বড় ধরনের কোন বিশৃঙ্খলা হয়নি। বিশেষ করে সাচার অঞ্চলের মাদক, ইয়াবা ও অসামাজিক কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রনে রাখার চেষ্টা করছি। যত দিন থাকবো আইন শৃংখলা নিয়স্ত্রণে রাখবো।’

স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, সাচার বাজারে স্থায়ী ভাবে পুলিশ ফাঁড়ি করতে ৫০-৫৫ শতাংশ ভূমির প্রয়োজন। কিন্তু সাচার মৌজার সি.এস ১০৩১,১০৩২,১০৩৩ খতিয়ানে (জমিদার), বিএস খতিয়ানের ৬৩৩ ও বিএস ১১৩৮ দাগে ৫ একর ৭৮ শতাংশের আন্দরে প্রায় ৪৪ শতাংশ খাস জমি রয়েছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা কিংবা কেবল মাত্র ব্যক্তি উদ্যেগ নিলেই অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্পটি স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি হিসেবে প্রতিষ্ঠা সম্ভব।

সাচার তালুকদার মার্কেটের পরিচালক ও সাবেক ইউপি সদস্য মো. সিরাজুল ইসলাম তালুকদার চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ১৯৮১-৮২ সালে তৎকালিন (জাতীয় পার্টির) আমলে এ অঞ্চলের মানুষের সার্বিক নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে ক্যাম্পটি স্থাপন করা হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও ক্যাম্পটি স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়িতে পরিনত হয়নি।

সাচার পুলিশ ক্যাম্পটি স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি হিসেবে করা এ অঞ্চলের মানুষের সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে।

কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইব্রাহিম খলিল চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, ‘জনসংখ্যার তুলনায় সীমিত পুলিশ সংখ্যা রয়েছে যা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় হীমশিম খেতে হয়। সাচার পুলিশ ক্যাম্পটি স্থায়ী (তদন্ত কেন্দ্র) পুলিশ ফাঁড়িতে রূপান্তর করতে ইতোমধ্যে চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মহোদয়সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।’

এদিকে কচুয়ার সাচার বাজার পুলিশ ক্যাম্পটি স্থায়ী পুলিশ ফাড়িতে পরিণত করতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী।

প্রতিবেদক- জিসান আহমেদ নান্নু, কচুয়া করেসপন্ডেন্ট

 

 

Leave a Reply

ইন্টারনেট কানেকশন নেই