Home / আবহাওয়া / চাঁদপুরসহ সারাদেশে গরমের তীব্রতা আরো বাড়তে পারে আজ
weather hot day

চাঁদপুরসহ সারাদেশে গরমের তীব্রতা আরো বাড়তে পারে আজ

চাঁদপুরসহ সারা দেশে আজ শুক্রবার গরম আরও বাড়তে পারে। আরও কয়েকটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে পারে দাবদাহ। আবহাওয়া অধিদপ্তর এই তথ্য জানিয়েছে। চাঁদপুরে আজ তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকায় গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে আকাশে কিছুটা মেঘ ও মৃদু বাতাস অবশ্য দাবদাহ বিদায়ের আভাস দিচ্ছিল। কিন্তু দুপুরের রোদের সঙ্গে যেন লু হাওয়া বইতে শুরু করে। যানজট নগরবাসীর মধ্যে গরমের কষ্ট আরও বাড়িয়ে দেয়।

গতকাল দেশের সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ৩৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর রাজধানীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

গতকাল দেশের বেশির ভাগ এলাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৫ থেকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ছিল। সাধারণত কোনো এলাকার তাপমাত্রা ৩৫ থেকে ৩৬ ডিগ্রি অতিক্রম করলে সেখানে মৃদু দাবদাহ বয়ে যায়।

আজ শুক্রবার খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী, রংপুর বিভাগের একাংশ, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা ও বরিশাল বিভাগে এই দাবদাহ বয়ে যেতে পারে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ফণী ৩ মে বাংলাদেশে আসার আগের ১০ দিন ছিল দাবদাহ। এরপর দুদিন কিছুটা ঝড়বৃষ্টি হলেও চার দিন ধরে দাবদাহ চলছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বলেন, আজ থেকে তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে। দাবদাহ চলতে পারে আরও দু-তিন দিন। ১২ মে থেকে হালকা বৃষ্টি হয়ে তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী, এপ্রিল ও মে—এই দুই মাস সবচেয়ে উত্তপ্ত থাকে। এবারের এপ্রিলে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি গরম ছিল। রাজশাহী ও রংপুর ছাড়া দেশের সব কটি বিভাগে এবার স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টি হয়েছে। ফলে তাপমাত্রাও স্বাভাবিকের চেয়ে গড়ে দুই থেকে তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি ছিল। সামগ্রিকভাবে এপ্রিলে সারা দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ২০ শতাংশ কম বৃষ্টি হয়েছে। চলতি মে মাসের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এই মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টি হতে পারে। ফলে গরমও বেশি থাকতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, গত ২২ এপ্রিল রাজধানীসহ দেশের বেশ কিছু এলাকায় হালকা বৃষ্টি হয়। এরপর দেশের বেশির ভাগ এলাকায় দাবদাহ বয়ে যেতে থাকে। ৩ মে ঘূর্ণিঝড় ফণী ভারতের ওডিশা উপকূলে আঘাত হানার পর থেকে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আকাশ মেঘলা হয়ে যায়। রাজশাহী, রংপুর ও সিলেট বিভাগের বেশ কিছু স্থানে মাঝারি বৃষ্টিও হয়। ৫ মে থেকে আবারও শুরু হয় খরতাপ আর দাবদাহ। পাঁচ দিন ধরে চলা এই দাবদাহ প্রতিদিনই দেশের নতুন নতুন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে।

গরম থেকে রক্ষা পেতে বেশি করে পানি খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে আবহাওয়াবিদেরা বলছেন, এই সময়ে সরাসরি রোদের সংস্পর্শে যাতে না আসতে হয়, সে জন্য মাথায় ক্যাপ, সানগ্লাস ও ছাতা ব্যবহার করা যেতে পারে।

বার্তা কক্ষ
১০ মে ২০১৯