Home / আরো / খেলাধুলা / টানা তিন বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্যর্থ বিরাট কোহলি
kohli rohossomoy bat

টানা তিন বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্যর্থ বিরাট কোহলি

এই মুহূর্তে তিনি বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান। কিন্তু জানেন কি, এই নিয়ে পর পর তিনটি বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ব্যর্থ বিরাট কোহলি! হ্যাঁ, রেকর্ড বলছে এমনই।

টানা পাঁচ ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি করে রেকর্ড গড়েছিলেন বিরাট। কিন্তু সেমিফাইনালের রিজার্ভ ডে-তে এসে রান পেলেন না কিং কোহলি।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে ভারতীয় দলের রান যখন মাত্র পাঁচ তখনই কোহলি ব্যক্তিগত এক রানে আউট হলেন।
মোহালিতে ২০১১ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোহলি করেছিলেন মাত্র ৯ রান।

সিডনিতে ২০১৫ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে কোহলি মাত্র এক রান করে আউট হয়েছিলেন। তিনটি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে কোহলির সব মিলিয়ে রান ১১
কিউইদের কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হলো টিম ইন্ডিয়ার। নিশ্চিত হলো কিউইদের ফাইনাল। ২৪০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৪৯.৩ ওভারে ২২১ রান করে ভারত। আর ১৮ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে নিউজিল্যান্ড।

বৃষ্টিতে মঙ্গলবার খেলা বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের স্কোর ছিল ৪৬.১ ওভারে ২১১ রান। এরপর ম্যাচ গড়ায় রির্জাভ ডেতে। আজ বুধবার আর মাত্র ১৮ রানই যোগ করতে পেরেছিলেন রস টেলররা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৩৯ রান তোলে নিউজিল্যান্ড।

ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে মহাবিপদ থেকে ধীরে ধীরে ভারতকে বের করে নিয়ে আসছিলেন ধোনি। সঙ্গে তিনি পেয়ে গেলেন রবীন্দ্র জাদেজাকে। ৯২ রানে ৬ উইকেট পড়ার পর এই দুই ব্যাটসম্যানের ওপর ভর করে ভারতকে জয়ের রাস্তায় নিয়ে এসেছেন ধোনি এবং জাদেজা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারলেন না।

বিশ্বকাপ থেকে ভারতের বিদায়ে টাইগার ভক্তদের মধ্যে দেখা গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অনেকেই ভাসছেন আনন্দের বন্যায়। মূলত ২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকেই টাইগার সমর্থকদের মধ্যে ভারত বিদ্বেষী মনোভাব শুরু হয়।

ড. আসিফ নজরুল লিখেছেন,
Only about 10 years ago, India was my most favorite (except Bangladesh) team. Surprise, how much I enjoy their fall these days !
(However, appreciate the way they fought at the end).