Home / উপজেলা সংবাদ / চাঁদপুর সদর / হতদরিদ্রদের বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিলেন বালিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান

হতদরিদ্রদের বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিলেন বালিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান

হতদরিদ্র মানুষ নয় বরং ইউপি চেয়ারম্যান নিজেই খাদ্য সহায়তা নিয়ে খুঁজছেন হতদরিদ্রদের। গ্রামের হাট বাজার এবং বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিম্ন আয়ের দরিদ্রদের খুঁজে বের করে তাদের খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন তিনি। চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯নং বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম মিজির এমন ব্যতিক্রমী ও প্রশংসনীয় উদ্যোগ চমকে দিয়েছে ইউনিয়ন বাসীকে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়েছে চাঁদপুরের হতদরিদ্র মানুষ গুলো। গেলো কয়েক দিন ধরে কাজকর্ম না থাকায় নিম্ন আয়ের এসব মানুষগুলো খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছে। ২৯ মার্চ সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ভ্যান গাড়িতে খাদ্য সহায়তা নিয়ে এসব হতদরিদ্র মানুষদের খুঁজে বেড় করে তাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। চরম দারিদ্র্যতার দিনে চাল, ডাল, তেল, আলুসহ প্রয়োজনীয় খাদ্য সহায়তা পেয়ে খুশি ভাগ্যপীড়িত এসব মানুষগুলো। আর চেয়ারম্যানের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে বেশ প্রশংসা করছেন স্থানীয় জনগণ।

প্যারালাইসেস রোগে আক্রান্ত স্থানীয় আশু ঢালী বলেন, এই চরম দুর্যোগ ও অসহায় দিনে চেয়ারম্যান সাহেব খাদ্য সহায়তা নিয়ে আমাদের বাড়ি এসেছেন। আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, এজন্য আমি তাকে ধন্যবাদ জানাই।

মরহুম জাহাঙ্গীরের বিদবা স্ত্রী জানান, কাজ কর্ম না থাকায় বর্তমানে ছেলে সন্তান নিয়ে আমরা খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছি। চেয়ারম্যান সাহেব খাদ্যসহায়তা নিয়ে আমাদের বাড়ি এসেছেন। এর জন্য আমি আল্লাহর কাছে তার জন্য দোয়া করছি।

এ বিষয়ে বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম মিজি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে আমাদের এলাকার হতদরিদ্র মানুষ গুলো কর্মহীন হয়ে পড়েছে। কাজকর্ম না থাকায় তারা খুবই মানবেতর জীবনযাপন করছে। এমন অবস্থায় আমি আমার সাধ্যমত তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। পাশাপাশি আমার ইউনিয়নে যদি কোন মানুষের ঘরে খাবার না থাকে, আমাকে জানালে তার বাড়িতে খাবার পৌঁছে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

তিনি আরো বলেন এই দুঃসময়ে সমাজের স্বাবলম্বী মানুষদের প্রতি আমার আহ্বান, আপনারা আপনাদের সাধ্যমত অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াবেন তাদেরকে সহযোগিতা করবেন। তবেই, মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য- কথাটি পূর্ণতা পাবে।

আশিক বিন রহিম,২৯ মার্চ ২০২০