Home / বিনোদন / সেলফি তোলার অপরাধে দেশছাড়া!

সেলফি তোলার অপরাধে দেশছাড়া!

মিস ইসরায়েলের সঙ্গে সেলফি তুলে চড়া মূল্য দিতে হলো মিস ইরাক সুন্দরী সারাহ ইদানকে। হুমকির মুখে তার পুরো পরিবারকেই দেশ ছাড়তে হয়েছে।

জানা গেছে, বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় মিস ইসরায়েলের সঙ্গে সেলফি তোলেন সারাহ। এ কারণে হত্যার হুমকি দেয়া হয় ইরাকি সুন্দরী ও তার পরিবারকে। এ কারণে তারা দেশ ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রে মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতায় মিস ইসরায়েল অ্যাডার গেন্ডেলসম্যানের সঙ্গে একটি সেলফি তোলেন ২৭ বছর বয়সী সারাহ। ইনস্টাগ্রামে ছবিটি পোস্ট করার পর তা ভাইরাল হয়ে যায়। ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবিটির ক্যাপশনে লেখা ছিল, ‘মিস ইরাক ও মিস ইসরায়েলের পক্ষ থেকে শান্তি ও ভালোবাসা’। এই সেলফি তোলার কারণে ইরাকি সুন্দরী সারাহ ইদানের পরিবারকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়।

ইরাক ইসরায়েলকে স্বীকার করে না। এ ছাড়া দেশ দুটির মধ্যে কোনো ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্কও নেই।

ইসরায়েলের সুন্দরী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ইদান যদি ছবিটি সরিয়ে না নেন, তাহলে তার মিস ইরাক খেতাব বাতিল করে পরিবারসহ তাকে হত্যা করার হুমকি দেয়া হয়। এসব কারণে ভয়ে ইদান ও তার পরিবার ইরাক ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

শুক্রবার এক টুইট বার্তায় মিস ইরাক সারাহ ইদান নিশ্চিত করেছেন, তিনি ও তার পরিবার খুব বিপদের মুখে আছেন। তিনি বলেছেন, ‘ছবিটি কোনোভাবেই ইসরায়েলের সরকার ও নীতির প্রতি আমার সমর্থন প্রকাশ করে না। তারপরও এই ছবি দেখে যারা আঘাত পেয়েছেন, আমি তাদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। ছবিটি প্রকাশ করার উদ্দেশ্য কাউকে আঘাত করা নয়।’

সারাহ ইদানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা ইরাকের বাগদাদে। ২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্র ইরাকে হামলা চালালে তিনি মার্কিন সেনার পক্ষে কাজ করেন। পরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। এখন তার পরিবারের সদস্যরাও সেখানে চলে গেলেন।

নিউজ ডেস্ক
: আপডেট, বাংলাদেশ সময় ৮:৩৫ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, রোববার
এএস

শেয়ার করুন