Home / জাতীয় / পিঁয়াজের লঙ্কাকাণ্ড : একদিনেই সেঞ্চুরি হাঁকাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা
onion

পিঁয়াজের লঙ্কাকাণ্ড : একদিনেই সেঞ্চুরি হাঁকাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা

একদিনের ব্যবধানে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজির পিঁয়াজের দর সেঞ্চুরি হাঁকাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। সপ্তাহ খানেক আগে এই পিয়াজই বিক্রি হয় ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে। সোমবার ভারত থেকে পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবরে এদিন বিকাল থেকেই চলছে পিয়াজ নিয়ে লঙ্কাকাণ্ড।

পিঁয়াজের মজুত থাকলেও বিক্রি কমিয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। যারা বিক্রি করছেন তারা দাম নিচ্ছেন কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেশি। এক রাতের ব্যবধানে ৭০ টাকা কেজির দেশি পিঁয়াজের দাম ১০০ টাকায় উঠেছে। কেন এই দাম বাড়লো এর কোনো উত্তর কারো কাছে নেই। গত বছরের একই সময়ে ভারতের রপ্তানি বন্ধের পর দেশীয় বাজারের পিঁয়াজের কেজি ৩০০ টাকার রেকর্ড ছুঁয়েছিল।

এবার শুরুতেই আলামত দেখে বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এখনই কঠোরভাবে ব্যবস্থা না নিলে পিঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়তে পারে।

করোনা সংক্রমণের মধ্যেও পিঁয়াজের দাম ক্রেতাদের নাগালেই ছিল। এ বছর ঠিক গত বছরের মতো একই সময়ে ভারত পিঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় হঠাৎ করেই অস্থির হয়ে উঠছে পিঁয়াজের বাজার। যদিও রপ্তানি বন্ধের কয়েকদিন আগে থেকেই দেশের বাজারে পিঁয়াজের দাম বাড়তির দিকে। ক্রেতারা বরাবরই বলছেন এটা ব্যবসায়ীদের কারসাজি।

অথচ পরিসংখ্যান বলছে, চাহিদার তুলনায় দেশে পিঁয়াজের কোনো ঘাটতি নেই। কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর প্রায় ২৪ লাখ টন পিয়াজ উৎপাদন হয়েছে। এরমধ্যে সংরক্ষণের অভাবে পচে নষ্ট হয়ে যায় ৩০ শতাংশ বা প্রায় সাড়ে ৭ লাখ টন পিয়াজ। আর ইতিমধ্যে ভারত থেকে ৮ লাখ টনের বেশি পিঁয়াজ আমদানি হয়েছে। তা সত্ত্বেও হু হু করে বাড়ছে দাম।

পণ্যটি নিয়ে ব্যবসায়ীদের কারসাজি চলছে বলে ক্রেতাদের অভিযোগ। দু’দিন আগেও দাম বৃদ্ধির জন্য ভারতীয় পিয়াজ আমদানি কম এবং সে দেশে মূল্য বৃদ্ধিকে দায়ী করেছেন ব্যবসায়ীরা। এ অবস্থায় ভারত গত সোমবার পিঁয়াজ রপ্তানি আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধের ঘোষণা দেয়। গতকাল পর্যন্ত দেশের তিনটি প্রধান স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পিয়াজ আসা বন্ধ ছিল। এই খবরে সোমবার বিকাল থেকেই অস্থির হয়ে ওঠে রাজধানীর পিঁয়াজের বাজার। এদিন বিকাল থেকেই ব্যবসায়ীরা কারসাজি করে পাইকারি বাজারগুলোতে পিঁয়াজের দাম বাড়াতে থাকে বলে অভিযোগ করছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।

তারা বলছেন, একদিকে আমদানিকারদের কারসাজি অন্যদিকে ক্রেতারা দাম বাড়ার খবর শুনে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি করে পিঁয়াজ কিনছেন। ফলে দাম দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে। গতকাল দুপুর পর্যন্ত পিঁয়াজের দাম একদিনেই বেড়েছে ২০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত।

সরজমিনে কারওয়ান বাজারে গিয়ে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা পিয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দিয়ে বসে আছেন। এ সময় অনেক ক্রেতাই পিঁয়াজ না পেয়ে চলে যাচ্ছেন। বিক্রেতাদের জিজ্ঞেস করলে তারা বলছেন, আজকের মতো বিক্রি শেষ। অথচ পাশেই বস্তাভর্তি পিঁয়াজ সাজিয়ে রেখেছেন তারা। সাংবাদিকদের উপস্থিতি দেখে আতঙ্কে আড়ত ছেড়ে পালাতে দেখা গেছে কয়েকজন ব্যবসায়ীকে। এরমধ্যেই একজন খুচরা বিক্রেতা তার দোকান খুললেন। এ সময় ১৫-২০ জন ক্রেতা হুমড়ি খেয়ে পড়েন। বিক্রেতা বলছেন, পাল্লাপ্রতি ৪৫০ টাকার কম নেই। একজন ক্রেতাই নিচ্ছেন ৫-১০ কেজি বা তারও বেশি করে। মুহূর্তেই এক বস্তা পিঁয়াজ শেষ। এক বস্তা বিক্রি শেষে বাকিগুলো পাশে রেখে দিয়েছেন ওই বিক্রেতা।

তিনি বলেন, আপাতত এক বস্তাই আর পিঁয়াজ নেই। অথচ পাশে আরো ৩-৪ বস্তা পিঁয়াজ ছিল। এ সময় ক্রেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। একজন ক্রেতা বলেন, ১ ঘণ্টা ধরে ঘুরছি বিক্রেতারা বলছেন পিঁয়াজ নেই। অথচ দেখেন বস্তা বস্তা পিঁয়াজ সাজিয়ে রেখেছেন। এরা কারসাজি করে দাম বাড়াচ্ছে অথচ সরকারের কোনো তৎপরতা নেই।

এছাড়া মালিবাগ, মগবাজার ও শান্তিনগর বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে একদিনের ব্যবধানে মান ভেদে কেজিতে প্রায় ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে পিঁয়াজের দাম। কারওয়ান বাজারে প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) দেশি পিঁয়াজ বিক্রি হয়েছে থেকে ৪৫০ টাকায়। খুচরা বাজারে যা ৯৫ থেকে ১০০, ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মালিবাগ বাজারে ১ কেজি পিঁয়াজের দাম ৯৫ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। শান্তিনগর, মগবাজারসহ বিভিন্ন বাজারেও একই চিত্র। আর আমদানি করা ভারতের পিঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ টাকায়।

কারওয়ান বাজারের পিঁয়াজের খুচরা বিক্রেতা আবদুল হালিম বলেন, মিডিয়াইতো সমস্যাটা করলো। গতকাল ভারত থেকে পিঁয়াজ আসা বন্ধ হয়েছে এই খবরে হুলুস্থূল বেধে গেছে। আড়তদাররাও দাম বাড়িয়েছে তাই আমাদেরও বাড়াতে হয়েছে। গতকাল বিকাল থেকে এখন পর্যন্ত ১৫-২০ টাকা বাড়ছে। আরো বাড়বে। কারণ এই দাম বাড়ার কথা শুনে ক্রেতারাও কাল বিকাল থেকে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি পিঁয়াজ নিয়েছেন, এখনো নিচ্ছেন। যারা এককেজি নিয়েছেন তারা ৫-১০ কেজি করে নিয়ে যাচ্ছেন। তাই আমার পিঁয়াজ বিক্রি আপাতত শেষ হয়ে গেছে।

পাশেই বস্তায় পিঁয়াজ সাজানো আর বলছেন শেষ? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন এগুলো অন্য মানুষের, উনারা পিঁয়াজ রেখে বাইরে গেছেন।

তিনি বলেন, আমরা কি করবো বলেন, আড়তে দাম বাড়লে আমাদেরও তো বেশি দামেই আনতে হয়। এতে আমাদের আরো লস। কারণ কম দামে আনলে আমাদের যে লাভ দাম বেশি হলে বরং আরো ক্ষতি। কারণ তখন আমরা পুঁজির অভাবে কম করে আনতে হয়। তখন লাভও কম হয়। গত বছর থেকে এ পর্যন্ত যা হচ্ছে সবটাই ওদের কারসাজি। এতে খুচরা বিক্রেতাদের কিছু করার নেই। যদি ভারতসহ অন্যান্য দেশ থেকে পিঁয়াজ আমদানি না করা হয় তবে গত বছরের মতোই হবে।

এ বিষয়ে কারওয়ান বাজারের কয়েকজন পাইকারি ব্যবসায়ীদেরকে জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন, আমদানি বন্ধ তাই বাড়ছে। দেশে যা পিঁয়াজ উৎপাদন হয় তাতে আমাদের চাহিদার তুলনায় কম।

খান এ্যান্ড সন্স বাণিজ্যালয়ের স্বত্বাধিকারী লোকমান হোসেন বলেন, ভারতের রপ্তানি বন্ধের খবর শুনেই বাজার অস্থির হয়ে যাচ্ছে। ব্যবসায়ীদের এই প্রবণতাতো থাকেই। দাম বাড়ার আশঙ্কায় সবাই মজুত করে রাখে। তাই বিক্রি আপাতত কম হচ্ছে। অনেকে বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে।

এদিকে শ্যামবাজারেও সোমবার বিকালের পর থেকে পিঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দেন সেখানকার ব্যবসায়ীরা। তবে গতকাল কিছু কিছু বিক্রি হয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

এ বিষয়ে শ্যামবাজারের রুনা বাণিজ্যালয়ের স্বত্বাধিকারী ইলিয়াস হোসেন বলেন, সোমবার অনেকটা বিক্রি বন্ধ হয়ে গেলেও এখন কিছু কিছু বিক্রি হচ্ছে।

দাম বাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, চাহিদার তুলনায় দেশে পিঁয়াজের ঘাটতি রয়েছে। দামতো বাড়বেই। ভারত হঠাৎ আমদানি বন্ধ করে দিলো কেন এটা নিয়ে আপনারা কথা বলেন। দেশের যে পিয়াজ উৎপাদন হয় তাতে কি আমাদের হয়। কয়টা পিয়াজ দেশে উৎপাদন হয়? চাহিদা পূরণ করতে হলে অবশ্যই পিয়াজ আমদানি করতে হবে।

ব্যবসায়ীরা পিঁয়াজ মজুত করে কারসাজি করে দাম বাড়াচ্ছেন- এমন অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, আমরা যা আড়তে আনছি তাতো এক-দুইদিন মজুত করেই রাখতে হয়। এটাকে আপনি কারসাজি বলবেন? গত বছর ভারতের রপ্তানি বন্ধের ঘোষণায় হঠাৎ করেই পিঁয়াজের দাম বেড়ে যায়। বাংলাদেশ চাহিদা মেটাতে যতটুকু পিয়াজ আমদানি করে, তার ৯০ শতাংশের বেশি আসে ভারত থেকে। ভারত বন্ধ করে দিয়েছে এখন অন্য দেশ থেকে আমদানি করতে হবে বলে মত দেন ব্যবসায়ীরা।

ওদিকে পিঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে কারওয়ান বাজার ও পুরান ঢাকার শ্যামবাজারে গতকাল বিশেষ অভিযানে নামে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিম। অভিযানকালে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জানায়, ভারত থেকে পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ হওয়ার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা দাম বাড়িয়ে দিয়ে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে ফেলে। এই সুযোগ আর দেয়া যাবে না। কোনো ব্যবসায়ী যদি অনৈতিকভাবে দাম বাড়িয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানায় সংস্থাটি।

ইন্টারনেট কানেকশন নেই