Home / জাতীয় / রাজনীতি / রাষ্ট্রদূতরা তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী : সৈয়দ আশরাফ
Ashraf
ফাইল ছবি

রাষ্ট্রদূতরা তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী : সৈয়দ আশরাফ

চাঁদপুর টাইমস ডট কম : 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শনিবার সংবাদ সম্মেলনে দেশের সুশীল সমাজ নিয়েও কথা বলেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সুশীল’ নামটা কে দিল? উনারা নিজেরাই নিজেকে সুশীল বলে। বিজ্ঞরা পত্রিকায় কলাম লেখার মধ্যদিয়ে তাদের পরামর্শ দিতে পারে। কিন্তু কিছুদিন পরপর একেক জন যেভাবে আসে! এমনভাব, মনে হয় তিনিই বাংলাদেশের মুরুব্বি।
আশরাফ অভিযোগ করেন, পরিবেশ না থাকায় টকশোতে পন্ডিত ব্যক্তিরা আসেন না। তাই, তাদের নিয়ে এসে শুণ্যতা পূরণ করে টিভিগুলো। এতে টেলিভিশনের মানও কমছে। পরিবেশ সৃষ্টি করলে অনেকেই আপনাদের টকশোতে আসবে। নিউজও আাগের মত হয় না। হয়ত খবরের অভাব, না হয় আপনারা সঠিক খবরটা সেভাবে উপস্থাপন করেন না।

এসময় বুদ্ধিজীবীদের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, বাংলাদেশটা বুদ্ধিজীবীরা আইনা দেয় নাই। বুদ্ধিজীবীরা সব সময় সুবিধাবাদী। এদের বিভিন্ন সংগঠন, এক ব্যাক্তি বিভিন্ন সময় একই দাবি নিয়ে আসেন।
‘আপনি বলছেন, সন্ত্রাসীদের সঙ্গে কোনো রাষ্ট্র আলোচনা করে না’, কিন্তু প্রতিনিয়তই রাষ্ট্রদূতরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে আলোচনা করছেন, এ বিষয়টি কীভাবে নিচ্ছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে আশরাফ বলেন, যারা রাষ্ট্রদূত আছেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেন। তারা কি পরিমাণ আলোচনা করেন বা হয়-এটা আমরা জানি। আপনারা (সাংবাদিক) জানেন না। তাদের সঙ্গে এমন কিছু আলোচনা হয় না, যে নির্বাচনের তারিখ বা সময় দেওয়ার বিষয়। তারা বলেছেন, সহিংসতা বন্ধ করতে।
এসময় তিনি আরও বলেন, এখানে তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারিরা আসে। যারা নিজ দেশে কোনো মূল্য পায় না। আপনারা ৫০টি টিভি চ্যানেল গিয়ে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। মনে হয়, তারা আপনাদের ত্রাণকর্তা। আমি এদের বিরোধীতা করায় অনেকে আমাকে বলেছে, সর্বনাশ আশরাফ তুমি কি করলে? অ্যামেরিকায় তো …………. নিয়ে আসবে। জবাবে বলেছি, আমি ৩০ বছর বিলেতে ছিলাম। কখন ক্ষুব্ধ হয় আমি জানি। (সূত্র- তাজাখবর)

ইন্টারনেট কানেকশন নেই