Home / উপজেলা সংবাদ / মতলব দক্ষিণ / মুন্সীরহাট বিদ্যালয়ে দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্তিতে ‘অনিয়ম’

মুন্সীরহাট বিদ্যালয়ে দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্তিতে ‘অনিয়ম’

মতলব দক্ষিণ উপজেলার মুন্সীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির দাতা শ্রেণিতে ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভূক্তিতে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মধ্য দিঘলদী এলাকার মো. জাকির হোসেন সরকার ও মোবারকদী এলাকার মো. মিজানুর রহমান কাজী চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ‘মুন্সীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের আসন্ন ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনে দাতা শ্রেণিতে ভোটার হতে ১০ জুলাই অগ্রণী ব্যাংক মুন্সীরহাট শাখায় বিদ্যালয়ের হিসাবে ২০ হাজার টাকা জমা প্রদান করা হয়। পরে ব্যাংক রশিদ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট জমা দিতে গেলে প্রধান শিক্ষক টাকা জমার রশিদ গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।’

তারা আরো জানান, ‘১১ জুলাই বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে স্থানীয় কমিশনার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে টাকা জমার ব্যাংক রশিদ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করলে তিনিও অপারগতা প্রকাশ করেন।’

প্রধান শিক্ষকের নিকট ব্যাংক রশিদ গ্রহণ না করার বিষয়ে লিখিত দিতে বললে প্রধান শিক্ষক তা দিতে রাজি হয়নি বলে দাবি করেন মো. জাকির ও মো. মিজানুর রহমান কাজী ।

মো. জাকির হোসেন সরকার চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ‘বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য মোঃ মাসুদ রানাকে দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তাই রশিদ গ্রহণ করেননি। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট বিভাগে অভিযোগ দিয়েছি।’

প্রধান শিক্ষক মো. কবির হোসেন চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, ‘বিধি মোতাবেক ১০ জুলাই ১৮০দিন পূর্বে বিকাল ৪টার মধ্যে এক ব্যক্তি দাতা শ্রেণিতে অন্তর্ভুক্তির জন্য ব্যাংক রশিদ জমা দিয়েছে। অন্য কারো ব্যাংক রশিদ আমি পাইনি।’
মতলব মুন্সীরহাট বিদ্যালয়ে দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্তিতে অনিয়ম

মতলব প্রতিনিধি:

মতলব দক্ষিণ উপজেলার মুন্সীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির দাতা শ্রেণিতে ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভূক্তিতে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মধ্য দিঘলদী এলাকার মো. জাকির হোসেন সরকার ও মোবারকদী এলাকার মো. মিজানুর রহমান কাজী চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ‘মুন্সীরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের আসন্ন ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনে দাতা শ্রেণিতে ভোটার হতে ১০ জুলাই অগ্রণী ব্যাংক মুন্সীরহাট শাখায় বিদ্যালয়ের হিসাবে ২০ হাজার টাকা জমা প্রদান করা হয়। পরে ব্যাংক রশিদ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট জমা দিতে গেলে প্রধান শিক্ষক টাকা জমার রশিদ গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।’

তারা আরো জানান, ‘১১ জুলাই বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে স্থানীয় কমিশনার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে টাকা জমার ব্যাংক রশিদ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করলে তিনিও অপারগতা প্রকাশ করেন।’

প্রধান শিক্ষকের নিকট ব্যাংক রশিদ গ্রহণ না করার বিষয়ে লিখিত দিতে বললে প্রধান শিক্ষক তা দিতে রাজি হয়নি বলে দাবি করেন মো. জাকির ও মো. মিজানুর রহমান কাজী ।

মো. জাকির হোসেন সরকার চাঁদপুর টাইমসকে জানান, ‘বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য মোঃ মাসুদ রানাকে দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তাই রশিদ গ্রহণ করেননি। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট বিভাগে অভিযোগ দিয়েছি।’

প্রধান শিক্ষক মো. কবির হোসেন চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, ‘বিধি মোতাবেক ১০ জুলাই ১৮০দিন পূর্বে বিকাল ৪টার মধ্যে এক ব্যক্তি দাতা শ্রেণিতে অন্তর্ভুক্তির জন্য ব্যাংক রশিদ জমা দিয়েছে। অন্য কারো ব্যাংক রশিদ আমি পাইনি।’

About The Author

প্রতিবেদক- পলাশ রায়, মতলব দক্ষিণ

: আপডেট, বাংলাদেশ সময় ১০:২০ পিএম, ১৩ জুলাই ২০১৬, বুধবার
ডিএইচ