মতলবে ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ ৫টি পরিবার

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার গজরা ইউনিয়নের রাজরুকান্দি গ্রামে প্রায় ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ রয়েছে ৫টি পরিবার। পাশবর্তি প্রতিপক্ষ বাঁশের বেড়া দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে রেখেছে ২০ দিন ধরে। এতে করে ৫টি পরিবারের লোকজন বাড়ি থেকে বের হতে পারছেনা।

এ অমানবিক ঘঁনাটি ঘটেছে গজরা ইউনিয়নের রাজরুকান্দি গ্রামের ভুইয়া বাড়িতে। সরেজমিনে গিয়েও এ রাস্তা বন্ধের ও অবরুদ্ধ ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়।

জানা যায়,উপজলার গজরা ইউনিয়নের রাজুরকান্দি গ্রামের একেএম জাহাঙ্গীর আলম ভুইয়া, গিয়াস উদ্দিন ভুইয়া, জসিম উদ্দিন ভুইয়া ও নাসির উদ্দিন ভুইয়া তারা শিক্ষিত ও ভদ্র পরিবার এবং চাকুরীজীবি হওয়ায় কেউ চাঁদপুর ও কেউ ঢাকায় থাকেন। তাদের পরিবারের লোকজন বাড়িতে থাকেন। অবরুদ্ধ করার কারণে তাদের পরিবারের লোকনজন বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না গত কয়েক দিন ধরে।

এ অসসামাজিক ও অমানবিক কাজটি করেছেন তাদের বাড়ির পাশ্ববতি ইদ্রিস আলী ভুইয়ার ছেলে কামাল (৫০), মোহসিন (৪৫), আঃ ছামাদ মিয়ার ছেলে আলীী আসাদ (৪৫), ও আঃ ছামাদ ভুইয়ার ছেলে মোহাম্মদ আলী। তারা প্রায় ২০ দিন আগে বাঁস দিয়ে ব্যাংকার একেএম জাহাঙ্গীর আলম ভুইয়া, গিয়াস উদ্দিন ভুইয়া, জসিম উদ্দিন ভুইয়া ও নাসির উদ্দিন ভুইয়াসহ এদের ঘরের পাশদিয়ে তাদের যে রাস্তা দিয়ে তারা বাহিরে চলাচল করে তা বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে অবরুদ্ধ করে রাখে তাদের। অবরুদ্ধ করার কারণে তাদের পরিবারের লোকনজন বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না।

এ ধরনের অমানুবিক ও অসমাজিক কাজ দীর্ঘ প্রায় ২০ দিন ধরে চলে আসলেও গ্রামের কেউ এগিয়ে আসেনি তাদের পাশে রহস্যজনক কারণে।

মতলব উত্তরে প্রায় ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গেলে কয়েকটি পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রাখা ও অভিযুক্ত পাশ্ববর্তি কামাল (৫০), মোহসিন (৪৫), আলী আসাদ (৪৫), ও মোহাম্মদ আলী তারা জানান, তাদের সাথে অবরুদ্ধ ব্যাক্তিদের সাথে তাদের সীমানা নিয়ে ঝামেলা রয়েছে।

এ কারণে তারা তাদের সীমনা বরাবার বেড়া দিয়ে রেখেছে। এলাকায় ২০ দিন ধরে অবরুদ্ধ এ বিষয়ে কয়েকজন গ্রাম্য শালিসিদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন আমরা মানা করেছি তারা শুনেনি। এখন আমরা তা সরিেেয় দেব বলে জানান।

রাজুরকান্দি গ্রামের বিশিষ্ট সমাজ সেবক ব্যাংকার একেএম জাহাঙ্গীর আলম ভুইয়া জানান, আমি চাঁদপুরে ব্যাংকে চাকুরী করি বিধায় চাঁদপুরে থাকি। আমার পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়স্বজন বাড়িতে থাকে। কোনো কারণ ছাড়াই আমাদের চলাচলের রাস্তায় তারা বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়ে আমাদেরসহ কয়েকটি পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে।

বর্তমান এ সমাজে এ ধরনের নেক্কারজনক কাজ ও কাউকে অবরুদ্ধ করে রাখার আইন আছি নাকি। তাও আবার আমাদের জায়গায়। ওরা খুবই খারাপ প্রকৃতির ও দুষ্ট প্রকৃতির এবং অত্যাচারী লোকজন। তারা আমাদের জায়গা-সম্পত্তি জবর দখল করে রেখেছে সমাজের কিছু ইন্দন-দাতার কারণে। আমরা শিক্ষিত ও ভদ্র এ জন্য তাদের অনেক অত্যাচার ও জবর-দখল অনেব সহ্য করেছি।

প্রতিবেদক:কামাল হোসেন খান,২৬ জুলাই ২০২০

Share