Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
Home / উপজেলা সংবাদ / মতলব দক্ষিণ / মতলব আইসিডিডিআরবিতে প্রতিদিন ২ শতাধিক শিশু ডায়রিয়া রোগী ভর্তি
ICDDRB-matlab
ফাইল ছবি

মতলব আইসিডিডিআরবিতে প্রতিদিন ২ শতাধিক শিশু ডায়রিয়া রোগী ভর্তি

শীতের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে রোটা ডায়রিয়ার ব্যাপক প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। চাঁদপুর, কুমিল্লা, নোয়াখালীসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি জেলা-উপজেলার অধিকাংশ শিশুরা রোটা ভাইরাস জনিত ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। প্রতিদিনই ২’শ থেকে ২’শ ১৫ জন ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হতে দেখা যায়। এটি স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে চার গুন।

গত ১৩ দিনে ২ হাজার ৭৭১ জন শিশু আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষনা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) চাঁদপুরের মতলব কেন্দ্রে ভর্তি হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে ১’শ ৯৮ জন শিশু।

আইসিডিডিআরবির মতলব কেন্দ্রের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ হাসপাতালে গত ৩০ ডিসেম্বর থেকে ১১ জানুয়ারী পর্যন্ত রোটা ভাইরাস জনিত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ২ হাজার ৭৭১ জন শিশু ভর্তি হয়।

এর মধ্যে ১ বছর বয়সী শিশু ২ হাজার ১৫ জন। ২ থেকে ৪ বছর বয়সী শিশু ৫৫২ জন। বাকীদের বয়স ৫ বা এর বেশি। গত বছরের তুলনায় এবার রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। গতবার একই সময়ে ১৩ দিনে ভর্তি হয়েছিল ১৮৩৪ জন শিশু।

গত ১৩ দিনে ভর্তি হওয়া শিশুদের মধ্যে কুমিল্লা সদর দক্ষিণে ৯৯ জন, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ৪৬, তিতাস উপজেলার ৩৮ জন, নাঙ্গলকোট উপজেলার ৩৯ জন, কুমিল্লার বরুরা উপজেলার ১৯৩ জন, দাউদকান্দির ১০৪ জন, দেবিদ্বারের ১৬২ জন, হোমনার ৪৯ জন, মুরাদনগরের ১২২ জন, লাকসাম উপজেলার ১৬৮ জন, বুরিচং উপজেলার ৪২ জন, চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার ১৮৮ জন, চাঁদপুর সদরের ২০৫ জন, কুমিল্লা চান্দিনা উপজেলার ১৯৫ জন, ব্রাক্ষ্মনপাড়ার ১৯ জন, লক্ষীপুর জেলার সদর উপজেলার ১৫৭ জন, রামগঞ্জ উপজেলায় ১১২ জন, মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ২৭ জন, নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার ৭৪ জন, সোনাইমুড়ি উপজেলার ৩২ জন, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১৯৭ জন, হাজীগঞ্জের ১৫৫ জন, মতলব দক্ষিণের ৭৫ জন, মতলব উত্তরের ৭৯ জন, হাইমচরের ৬৫ জন, শাহারাস্তির ১০৭ জন, ব্রাক্ষ¥নবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ২২ জন।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. এনামুল ইসলাম চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, স্থায়ী ও অস্থায়ী মিলে এ হাসপাতালে শয্যা রয়েছে ১৪৪টি। গড়ে প্রতিদিন সেখানে দেড় শতাধিক রোগীর চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব।

হাসপাতালে রোগীদের বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি ওয়ার্ডেই ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুদের ভিড় এবং বারান্দাও চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে অনেক শিশু।

কুমিল্লার সদরের আকলিমা আক্তার চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, ঘন ঘন বমি ও পাতলা পায়খানা হওয়ায় বৃহষ্পতিবার রাতে ৮ মাস বয়সী শিশু উম্মে হাফসাকে এখানে ভর্তি করেন। ভর্তির পর চিকিৎসকরা শিশুকে স্যালাইন, সুজি ও বেবি জিংক খেতে দেয়। বর্তমানে তার (শিশুর) অবস্থা অনেকটা ভালো।

আইসিডিডিআরবির সিনিয়র চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. আল ফজল খান চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সাথে সাথে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় রোটা ভাইরাস জনিত ডায়রিয়া আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা।

এছাড়া মা-বাব সচেতন না হওয়ায় অনেক শিশু দুষিত পানি পান করছে এবং ময়লা, বাসি ও পচা খাবার খেয়েও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। এক্ষেত্রে দুষিত পানি পান ও পচা-বাসি খাবার বর্জন করলে এবং তীব্র ঠান্ডা থেকে শিশু মুক্ত রাখতে পারলে এ রোগ এড়ানো সম্ভব। ঘন ঘন পাতলা পায়খানা ও বমি হলে দেরি না করে রোগীকে কাছের হাসপাতালে নেওয়া জরুরি।

প্রতিবেদক- মাহফুজ মল্লিক
১১ জানুয়ারি, ২০১৯

শেয়ার করুন