Home / জাতীয় / ছাত্রদের আন্দোলনের মুখে শফী পুত্র আনাস মাদানীকে বহিষ্কার

ছাত্রদের আন্দোলনের মুখে শফী পুত্র আনাস মাদানীকে বহিষ্কার

অবশেষে আন্দোলনের মুখে হেফাজতে আমির ও হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর পুত্র কেন্দ্রীয় হেফাজতের প্রচার সম্পাদক ও মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষা পরিচালক মাওলানা আনাস মাদানীকে হাটহাজারী মাদরাসা থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার পরে মাদ্রাসার মসজিদের মাইকে এমন ঘোষণা পাঠ করেন আন্দোলনকারী ছাত্ররা।

জানা গেছে, শূরার এক জরুরি বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শূরায় উপস্থিত ছিলেন, ফটিকছড়ি নানুপুর ওবাইদিয়া মাদ্রাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা সালাউদ্দিন, হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা নোমান ফয়েজী ও মাওলানা ওমর ফারুক।

পাশাপাশি ছাত্রদের আর কোনো হয়রানি করবে না বলেও শূরা কমিটির বৈঠকে জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্দোলনকারী একাধিক শিক্ষার্থী।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জোহরের নামাজের পর থেকে আনাস মাদানির অপসারণসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে মাদ্রাসার সব গেইট বন্ধ করে ভেতরে আন্দোলন শুরু করে ছাত্ররা। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পুলিশ, র‍্যাব, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছালেও মাদ্রাসার সব গেইট বন্ধ থাকায় ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সতর্কবস্থায় বাইরে অবস্থান করে। তবে প্রশাসন যাতে মাদ্রাসার ভিতরে ঢুকে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না করে সেজন্য মাদরাসার ছাত্ররা মসজিদের মাইকে বারবার মাইকিং করছিল।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন-বিশেষ করে ৫টি দাবির মধ্যে দুটি দাবি পূরণ করেছে শূরা কমিটি। বিষয়টি শূরা কমিটির স্বাক্ষরিত পত্রে সবাইকে আবারো নিশ্চিত করে জানানো হবে।

শূরা কমিটিতে কারা আছেন তাও জানা সম্ভব হয়নি। রিপোর্ট লিখার সময় মাদ্রাসার ভেতরে অন্যান্য দাবিতে অনড় মাদ্রাসার আন্দোলনরত ছাত্ররা। মাদ্রাসার সব গেইট এখনও বন্ধ রয়েছে। বাইরে সতর্কতার সাথে অবস্থান করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মাদ্রাসার মাইকে ছাত্ররা বারবার দাবি দিতে থাকেন আনাস মাদানিকে অনতিবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। ছাত্রদের প্রাতিষ্ঠানিক সুযোগ সুবিধা বাস্তবায়ন সহকারে সকল প্রকার হয়রানি বন্ধ করতে হবে। আল্লামা আমদ শফি শারীরিকভাবে অক্ষম হওয়ায় পরিচালক পদ থেকে তাঁকে সম্মানজনক অব্যাহতি দিয়ে উপদেষ্টা বানাতে হবে। উস্তাদদের পুর্ণ অধিকার ও বিয়োগ নিয়োগকে শূরার নিকট পুর্ণ ন্যস্ত করতে হবে। বিগত শূরার হক্কানি আলেমদেরকে পুনর্বহাল ও বিতর্কিত সদস্যদেরকে পদচ্যুত করতে হবে।

দাবি আদায় না হলে মাদ্রাসার সমস্ত একাডেকিম কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলেও মাইকে ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারী ছাত্ররা।

তারা হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, আন্দোলনে বাধা সৃষ্টি হলে দেশের সমস্ত কওমি মাদ্রাসায় আন্দোলনের দাবানল জ্বলে উঠবে। আন্দোলন চলাকালে মাদ্রাসার ভেতরে আনাস মাদানিসহ তিন জন শিক্ষকের কক্ষ ভাংচুর করা হয়। শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করা হয়েছে হেফাজত নেতা মঈনুদ্দিন রুহিকেও।

বার্তা কক্ষ, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ইন্টারনেট কানেকশন নেই