Home / উপজেলা সংবাদ / ফরিদগঞ্জ / ফরিদগঞ্জে অবৈধ ট্রাক্টর দিয়ে মাটি উত্তোলন : হুমকির মুখে ফসলি জমি

ফরিদগঞ্জে অবৈধ ট্রাক্টর দিয়ে মাটি উত্তোলন : হুমকির মুখে ফসলি জমি

চাঁদপুর ফরিদগঞ্জে অবৈধ ট্রাক্টর দিয়ে ফসলি জমি থেকে জোরপূর্বক মাটি কেটে নিচ্ছে এলাকার প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা। ফসলি জমিতে ডেকো মেশিন বসিয়ে অবৈধ ট্রাক্টর এর মাধ্যমে মাটি কেটে নেওয়ায় এসব জমির বিভিন্নস্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যার ফলে মাটি কেটে নেয়া ওইসব জমিতে এবার ফসল ফলাতে পারছেন না স্থানীয় কৃষকরা ।

এমন চিত্র দেখা যায় ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৩নং সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের উভারামপুর ও নূরপুর কৃষি মাঠে।

জানা যায়, গত কয়েক বছর ধরে টোরামুন্সীর হাটে ইউ এন বি, বি জে কে, এম এন্ড বিসহ প্রায় ১০ টি ভাটায় ইট তৈরির কাজে উভারামপুর ও নূরপুর এলাকার কৃষি মাঠ থেকে একাধারে অবৈধ ট্রাক্টরের মাধ্যমে মাটি উত্তোলন করা হচ্ছে।

আর এতে করে এসব মাঠের জমির মালিকরা চাষাবাদ করতে না পেরে বাধ্য হয়ে তাদের কাছে মাটি বিক্রি করতে হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিক ইউসুফ, হারুন, মাসুদ ও রফিকসহ কয়েকজন কৃষক বলেন, ‘মুন্সীর হাটের ইট ভাটার মালিক ফরিদ হোসেন, হান্নান মিয়া, সুমন মিয়াসহ এক দল দালাল ভমিদুস্যুরা ভেকো মেশিন দিয়ে তাদের জমি থেকে মাটি উত্তোলন করে নিচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে জমির মালিক মাটি উত্তোলন বন্ধ করতে বললে ভূমিদস্যুরা তাদের হুমকি প্রদান করেন । এ বিষয়ে আমরা গত বছর প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেও কোন সুরাহ পাইনি।’

তারা আরো বলেন, ‘এসব ভূমিদস্যুদের অবৈধ ট্রাক্টর গ্রামীন রাস্তা দিয়ে প্রতিনিহিত চলাচলের ফলে এলাকা সাইটের জমি ও রাস্তা-ঘাট ভেঙ্গে যাওয়ার পরিণত হয়েছে। কিন্তু ভূমিদস্যুরা মাসখানেক দিন ধরে ফসলি, কৃষি ও জমির মাটি কেটে পুরো এলাকায় পুকুরে পরিণত করে ফেলেছে। তাই জরুরী ভিত্তিতে বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য সংশিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাাসী।’

সরেজমিন গিয়ে আরো জানা যায়, দৈনিক উভারামপুর- নূরপুর এলাকায় প্রায় ১০/১৫ টি অবৈধ ট্রাক্টর মাটি উত্তোলনের কাজে নিয়োজিত রয়েছে। এসব অবৈধ ট্রাক্টর চালক মাহাবুব, খলিল, কামাল, রুবেল, পিন্টু ও জাহাঙ্গীর মাঝির অত্যাচারে এলাকার সাধারন পথযাত্রী অতিষ্ট হয়ে পড়েছে।

গ্রামীন রাস্তা দিয়ে যখন এসব দানব ট্রাক চলাচল করে তখন পেছনের দিক ধুলা বালিতে আস-পাশের বসবাসরত ঘর-বাড়ি, দোকান পাট, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ পথযাত্রীদের চেহারা যেন বুজার উপায় থাকে না।

এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হারুন-অর রশিদ বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেলে ভালো হতো, তারপরেও অভিযোগ যেহেতু এসেছে আমরা অবশ্যই অবৈধ ট্রাক্টরের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।’

স্টাফ করেসপন্ডেট

ইন্টারনেট কানেকশন নেই