Home / চাঁদপুর / চাঁদপুরে একটি বরফকল খোলা রাখার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

চাঁদপুরে একটি বরফকল খোলা রাখার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে জাটকা সংরক্ষণের সরকার মার্চ-এপ্রিল দুই মাস নদীতে সকল প্রকার মাছ আহরণ নিষিদ্ধ করেছে। এই সময়টাতে পুকুর কিংবা ঝিলে চাষকৃত জিওল মাছেরর চাহিদা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। আর জিওল মাছের একমাত্র প্রাণ হল বরফ। এই অবস্থায় বরফের চাহিদা পূরন করতে চাঁদপুর জেলা মৎস্য সমবায় সমিতি লিঃ এর পক্ষ থেকে সমগ্র চাঁদপুর জেলায় একটিমাত্র বরফকল চালু রাখার দাবিতে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

৪ মার্চ বৃহস্পতিবার চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি আব্দুল বারী জমাদার ও সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ শবেবরাত সরকারের স্বাক্ষরিত পত্রে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। একই সাথে এই স্মারকলিপির অনুলিপি মৎস্য মন্ত্রণালয়, চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার ও চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা, সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বরাবর প্রেরণ করা হয়।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণে বাংলাদেশে চাষযোগ্য মাছের উৎপাদন ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। জাটকা রক্ষায় মাস এপ্রিল ২মাস নদীতে অতীতের তুলনায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলা ট্রাক্সসফোর্সের সভায় চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমবায় সমিতি লিমিটেডের অনুরোধক্রমে সাদা মাছ, তথা জিওল মাছের সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য একটি বরফ কল খোলা রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। চাঁদপুর মাছ ঘাট এ প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৫০০ মন জিওল মাছ আমদানি হয়ে থাকে। যা ট্রাকযোগে দেশের বিভিন্ন মোকামে সরবরাহ করা হয়। এই মাছের প্রাণ বরফ। সে প্রেক্ষিতে প্রতিনিয়ত ও প্রচুর বরফের প্রয়োজন হয়।

সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তার পেরিত কটির পত্রে আমরা জানতে পারলাম যে বরফকল বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে। অথচ ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলার টাস্কফোর্সের সভায় একটি বরফ কল খোলা রাখার সিদ্ধান্তেরর কথা উক্ত পত্রে না থাকায় আমরা মৎস্য ব্যবসায়ীরা হতাশ হয়েছি। অভিযানের সময় একটি বরফকল খোলা না থাকলে এবং বরফ না পাওয়া গেলে আমাদের আমদানিকৃত জিওল মাছ পচে নষ্ট হবে এবং মৎস্য ব্যবসাও বন্ধ হয়ে যাবে।

যাহা ফলে আমাদের মাছঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ী সহ প্রায় ২ হাজার লোক বেকার হয়ে পড়বে। পাশাপাশি চাঁদপুর ঐতিহ্যবাহী মাছ ঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ীরা অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হবে। অতএব জেলা শাসকের প্রতি আকুল আবেদন এই যে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলা টাস্কফোর্সের সভায় একটি বড় কল চালু রাখার যে সিদ্ধান্ত হয়েছিল তা বহাল রেখে মৎস্য ব্যবসায়ীদদের অপূরণীয় ক্ষতি থেকে রক্ষা করার অনুরোধ করছি।

প্রতিবেদক: আশিক বিন রহিম,৪ মার্চ ২০২১