Home / চাঁদপুর / জমে উঠেছে চাঁদপুরের ইলিশের বাজার

জমে উঠেছে চাঁদপুরের ইলিশের বাজার

সরগরম চাঁদপুরের ইলিশের বাজার। চাঁদপুরের মৎস্য ঘাটে গত ৪-৫ দিন ধরে মিলছে ব্যাপক সংখ্যায় রূপালী ইলিশ। ভরা মৌসুম আগস্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত হলেও এক মাস আগেই চাঁদপুরের বাজার ইলিশে সয়লাব। গত করেক দিন ধরে প্রতিদিনই নদী থেকে ট্রলারবোঝাই করে আসছে বিভিন্ন সাইজের ইলিশ। ফলে ক্রেতা-বিক্রেতায় জমজমাট হয়ে উঠেছে ঘাট।

বর্তমানে সাগরে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা চলছে। তাই জেলেরা চাঁদপুরের দক্ষিণ উপকূল এবং স্থানীয় পদ্মা ও মেঘনা নদী থেকে আহরণ করছেন ইলিশ মাছ। ফলে প্রতিদিনই চাঁদপুরের ঘাটে মিলছে ইলিশ। জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ইলিশ ধরা পড়ছে ভোলার দৌলতখাঁ ও শামরাজ এলাকায় বেশি। মহামারী করোনার এ সময়ে ইলিশ ধরা পড়ায় বেকার হয়ে পড়া আড়তদার, টাকার জোগানদার, খুচরা বিক্রেতা ও শ্রমিক-কর্মচারীদের মাঝে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরেছে।

রোববার শহরের বড় স্টেশন মাছঘাটে ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে বড় দুটি ট্রলারে করে দক্ষিণাঞ্চলের ভোলা, দৌলতখাঁ, চরফ্যাশন, শ্যামরাজ থেকে ছোট ও বড় সাইজের ইলিশ নিয়ে আসেন ১২ জন ব্যবসায়ী। একদিকে শ্রমিকরা ঘাটে আসা ইলিশ টুকরিতে ভরে আড়তে তুলে বড় বড় স্তূপ করে সাজিয়ে রাখছিলেন, অন্যদিকে পাইকাররা তা বিক্রির জন্য হাঁকডাক দিচ্ছিলেন।

বাজার ঘুরে ও আড়তদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঘাটে ওঠা অধিকাংশ ইলিশের সাইজ ১ কেজির নিচে। প্রতিমণ ১ কেজির ইলিশ ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা, ৭শ’-৮শ’ গ্রামের ইলিশ ২৭ থেকে ২৮ হাজার টাকা, ৫শ’-৬শ’ গ্রামের ইলিশ ২৪-২৫ হাজার টাকা, ২শ’ থেকে ৩শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ ১৩ থেকে ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। অপেক্ষাকৃত বড় সাইজের মাছ গাড়িতে তুলে জেলার বাইরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তুলনামূলক ছোট সাইজের ইলিশ চাঁদপুরের স্থানীয় বাজারে পাওয়া যায়।

পদ্মা-মেঘনা নদীতে যেসব ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে তার বেশিরভাগই আকারে ছোট। ব্যবসায়ীরা বলছেন, দক্ষিণাঞ্চল থেকে ইলিশবোঝাই ট্রলারগুলো রাত ১২টা থেকে সকাল পর্যন্ত চাঁদপুর ঘাটে আসে। রাতে আসা ইলিশ আড়তে নামালেও বিক্রি শুরু হয় সকাল ১০টার পর। করোনার কারণে এবং পদ্মা-মেঘনায় গত ৩ মাস একরকম অবসর সময় কাটালেও এখন শ্রমিকরা মাছ ওঠানো, প্যাকিং করা, বরফ দেয়া ও গাড়িতে তোলার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

চাঁদপুর জেলা মৎস্য বণিক সমবায় সমিতি লিমিটেডের সহসভাপতি রোটারিয়ান আবদুল বারী জমাদার মানিক ও সাধারণ সম্পাদক হাজী শবেবরাত জানান, চলতি মাসের শুরু থেকে দক্ষিণাঞ্চলের কিছু ইলিশ আসছে। প্রতিদিন ৮ থেকে ১০টি ট্রলারযোগে গড়ে দেড়-দুই হাজার মণ ইলিশ চাঁদপুর ঘাটে আসছে।

তিনি জানান, চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় বড় সাইজের ইলিশ ধরা পড়ছে কম। এই ঘাটের ৬-৭ জন ব্যবসায়ী দক্ষিণাঞ্চলের ইলিশ নিয়ে আসছেন, যা চাঁদপুরের স্থানীয় বাজারে বেশি বিক্রি হয়।

ক্রেতারা বলছেন, চাঁদপুরের বিভিন্ন বাজারে ইলিশের দাম এখনও বেশি।

নতুন বাজারের খুচরা মাছ বিক্রেতারা বলছেন, বিভিন্ন পরিবহনে করে এখানকার ইলিশ কুমিল্লা, ঢাকা, গাজীপুর, টাঙ্গাইল, বগুড়া, দিনাজপুর, পাবনা, ময়মনসিংহ ও সিলেটে চলে যাচ্ছে। ফলে স্থানীয় বাজারে ইলিশের দাম কিছুটা বেশি।

করেসপন্ডেট,৬ জুলাই ২০২০

ইন্টারনেট কানেকশন নেই