Home / চাঁদপুর / চাঁদপুরে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে কাউন্সিলর প্রার্থী কারাগারে

চাঁদপুরে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে কাউন্সিলর প্রার্থী কারাগারে

চাঁদপুরে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করার অভিযোগে আলমগীর হোসেন বাবু নামে আসন্ন চাঁদপুর পৌর নির্বাচনের এক কাউন্সিলর প্রার্থীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

শহরের ষোলঘর এলাকার বাসিন্দা এক গৃহবধূর দায়ের করা চাঁদাবাজির মামলায় গত ২ সেপ্টেম্বর জামিন নিতে আদালতে হাজির হন আলমগীর।

জামিন নামঞ্জুর করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শফিউল আযম তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চাঁদপুর মডেল থানার এসআই বিপ্লব চন্দ্র নাহা।

তার তদন্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, চাঁদপুর রেলওয়ে হকার্স মার্কেটের একটি দোকান ভাড়া নিয়ে নিয়মিত ভাড়া পরিশোধ করতেন না আলমগীর। যে কারণে চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে আলমগীরকে দোকান ছেড়ে দিতে বলেন মালিক। কিন্তু মেয়াদ শেষের পরেও আলমগীর দোকানের দখল না ছাড়তে নানা টালবাহানা করেন।

এক পর্যায়ে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও আলমগীর দোকান ছেড়ে না দিয়ে ফের প্রভাব খাটানো শুরু করেন।

এমন পরিস্থিতিতে মার্কেট কমিটির কর্মকর্তারা দোকানে তালা লাগিয়ে দেন। দোকান হাতছাড়া হওয়ার পর মার্কেট কমিটি ও দোকান মালিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে মালিককে দোকান দখলে বাধা দেন আলমগীর।

দোকানের মালিক (বাদী) এবং তার পরিবারের সকল সদস্যদের বিভিন্ন সময়ে নানাভাবে হুমকি দেন এবং প্রভাব খাটিয়ে বাদীকে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করতে থাকেন আলমগীর।

এতেও কার্যসিদ্ধি না হলে বাদীর কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন আলমগীর। এই টাকা না পেলে বাদী ও তার সন্তানদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন তিনি।

এমন পরিস্থিতিতে নিরাপত্তার অভাব বোধ করলে আলগমীরের বিরুদ্ধে ৩৮৫/৫০৬ (২) ধারায় কোর্টে মামলা করেন বাদী বিধবা গৃহবধূ।

এ মামলা প্রসঙ্গে বাদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুল হান্নান কাজী জানান, মামলাটির ওয়ারেন্ট ইস্যু হওয়া সত্ত্বেও আলমগীর হোসেন পলাতক ছিলেন। এরপর তিনি পলাতক থাকা অবস্থায় আদালতে আত্মসমর্পণ করতে গেলে আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন। মামলায় আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাড. ফজলুল হক সরকার।

করেসপন্ডেট,৫ সেপেটম্বর ২০২০

ইন্টারনেট কানেকশন নেই