Home / উপজেলা সংবাদ / কচুয়া / কচুয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

কচুয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

চাঁদপুরে কচুয়ায় পালাখাল গ্রামে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে কুমিল্লা বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোং লি.।

১৮ জানুয়ারি সোমবার দিনভর উত্তর পালাখাল,পালাখাল বাজার ও চৌধুরী বাড়ি সংলগ্ন প্রায় ২ কিলোমিটার সংযোগ লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়। এসময় অবৈধ গ্যাস সংযোগ ব্যবহারের দায়ে বাংলাদেশ গ্যাস আইন ২০১০ এর ১০ ধারা (গ) এর দন্ডবিধি মোতাবেক পালাখাল গ্রামের আকতার হোসেনকে ৫ হাজার টাকা ও বোরহান উদ্দিনের দুই ভাড়াটিয়াকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন কচুয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট একি মিত্র চাকমা।

এসময় কুমিল্লা বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এর ডিজিএম ভিজিল্যান্সে ইঞ্জি. মো: আজহারুল আলম,ডিজিএম কমন সার্ভিস মো: শাহানুর আলম,ম্যানেজার ভিজিল্যান্সে জসিম উদ্দিন,ইঞ্জিনিয়ার মীর ফজেল রাব্বি,ম্যানেজার শাহজাহান,সাখাওয়াত হোসেন ও বেলায়েত হোসেনসহ অন্যান্য র‌্যাব ও পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কুমিল্লা বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এর ডিজিএম ভিজিল্যান্স ইঞ্জি.মো.আজহারুল আলম চাঁদপুর টাইমসকে জানান,কচুয়ার বিভিন্ন এলাকায় গত কয়েকদিন যাবত আমরা অবৈধ গ্যাস বিচ্ছিন্ন অভিযান ও জরিমানা আদায় করছি। তিনি আরো জানান, যারা অবৈধ গ্যাস সংযোগের সাথে জড়িত ঠিকাদার ও অফিস কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলাসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে স্থানীয় একাধিক ভুক্তভোগী গ্রাহকরা জানান,আমরা প্রতি রাইজার বাবদ ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়েছি। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলকে হাত করে দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদার সাধারন মানুষকে গ্যাস সংযোগ দেয়ার কথা বলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ভ‚ক্তভোগী গ্রাহকরা দ্রুত বৈধ লাইন সংযোগ চায় নয়তোবা অর্থ হাতিয়ে নেয়া ঠিকাদার ও প্রভাবশালীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য যে, গত কয়েকদিন ধরে কচুয়ার বায়েক-জয়নগর-রাগদৈল,নয়াকান্দি-বজরীখোলা-মঙ্গলমুড়া,সাচার-পাথৈর,সাচার দক্ষিণ বাজার-হাতিরবন্দ,বাতাপুকুরিয়া-বুধুন্ডা,চাংপুর-তেগুরিয়া-যুগিচাপর-মাঝিগাছা,পালাখালসহ বেশ কয়েকটি স্থানে প্রায় ২০ কিলোমিটার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। তবে গ্যাস সংযোগ দেয়ার নামে একটি প্রভাবশালী মহল রাতারাতি কোটিপটি হয়েছে।

অন্যদিকে সাধারণ মানুষ তাদের ফাঁদে পড়ে লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে প্রতারনার ফাঁদে পড়ে এবং বর্তমানে তাদের গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় দারুন ভোগান্তি ও কষ্টের মধ্যে পড়েছে। বিষয়টি সমাধানের প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী।

প্রিতিবেদক:জিসান আহমেদ নান্নু,১৮ জানুয়ারি ২০২১