Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
Home / বিশেষ সংবাদ / দেশের তরুণ এমপি জলিল পুত্র ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন
Nijam Uddin jon
বাবার (প্রয়াত) আদর মাখা চুমু খাচ্ছেন ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন (ফাইল ছবি)

দেশের তরুণ এমপি জলিল পুত্র ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন

দেশের সবচেয়ে কম বয়সী (৩৪) সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বাণিজ্যমন্ত্রী বর্ষীয়ান নেতা মরহুম আবদুল জলিলের ছেলে ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দীন জলিল জন।

বয়সে তরুণ ও নতুন মুখ হলেও সবাই চেয়ে আছেন তার দিকে। এ আসনের মানুষ সেই হারিয়ে যাওয়া আবদুল জলিলের অসমাপ্ত কাজকে তার ছেলের মাধ্যমে পূর্ণ করতে চায়। আবদুল জলিল শুধু নওগাঁর নেতা ছিলেন না; তিনি দলের নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন।

তাঁর পুত্র নিজাম উদ্দীন জলিল জন নওগাঁ সদর আসন থেকে ৭৩ হাজার ২০৩ ভো‌টের ব্যবধানে বিএন‌পি প্রার্থীকে পরা‌জিত ক‌রে নির্বা‌চিত হ‌য়ে‌ছেন।

এবার আওয়ামী লীগে যে কয়েকজন তরুণ প্রার্থী ম‌নোনয়ন নি‌য়ে চমক দেখিয়েছেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হলেন নিজাম উদ্দিন। বয়সের হিসেবে তিনিই দে‌শের সব‌চে‌য়ে কম বয়সী সংসদ সদস্য।

পেশায় একজন ব্যারিস্টার এবং লিগ্যাল অ্যাডভাইজার হিসেবে কর্মরত নিজাম উদ্দিনের স্বপ্ন বাবার অসমাপ্ত কাজ শেষ করা।

ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন বলেন, তিনি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। বাবা সারা জীবন মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকে ব্যারিস্টারি পড়া অসমাপ্ত রেখে বিদেশের মায়া ত্যাগ করে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন হয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি নওগাঁবাসীর জন্য অনেক উন্নয়ন করেছেন। আরও অনেক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অসমাপ্ত রয়েছে। তাই বাবার সেই আদর্শ রাজনীতিকে বুকে ধারণ করে বাবার অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করে নওগাঁ শহরকে একটি আধুনিক মানসম্মত ও মডেল শহরে রূপান্তর করবেন।

প্রসঙ্গত, মোহাম্মদ আব্দুল জলিল ছিলেন একজন রাজনীতিবিদ এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রাক্তন বাণিজ্যমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও ছিলেন বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি নওগাঁ-৫ আসন থেকে বিজয়ী হন। ১৯৯৬-২০০১ আওয়ামী লীগ শাসনামলে তিনি কয়েক বছর সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

তাঁর রাজনৈতিক জীবন শুরু হয় ১৯৫০-এর দশকের শেষ ভাগে। ছাত্রজীবনেই তিনি তৎকালীন বিভিন্ন আন্দোলন অংশগ্রহণ করতে শুরু করেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর।

তাঁর অন্যতম পরিচয় ছিল ‘নওগাঁর জলিল’ হিসাবে। আব্দুল জলিল ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ৭ নং সেক্টরের প্রধান সংগঠক ও যোদ্ধা ছিলেন। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম নির্বাচনে তিনি নওগাঁ সদর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি, বাকশাল গঠিত হলে তাঁকে নওগাঁর গভর্নরের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের পর তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। ৪ বছর পর ১৯৭৯ সালে তিনি মুক্তিলাভ করেন। ১৯৮১ সালে তাঁকে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক করা হয়।

১৯৮২ সালে সামরিক শ্বাসন জারি করা হলে তাঁকে পুনরায় গ্রেফতার করা হয়। ১৯৮৩ সালে তাঁকে আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধরন সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ১৯৮৪ এবং ১৯৮৮ সালে তিনি পরপর দু’বার নওগাঁ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

১৯৮৬ সালে তিনি দ্বিতীয়বারের মত নওগাঁ সদর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং সংসদে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮০’র দশকে তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। সে সময় থেকেই বিবিসি রেডিও এবং ভয়েজ অব আমেরিকায় নিয়মিতভাবে আওয়ামী লীগের মুখপাত্র হিসেবে তার কণ্ঠস্বর শোনা যেত।

১৯৯৩ সালে তাঁকে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য করা হয়। ২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হলে ১৯৯৮ সালে তাঁকে টেকনোক্র্যাট কোটায় বাণিজ্য মন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

২০০১ এবং ২০০৮ এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নওগাঁ সদর আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০২ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন এবং মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ছিলেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য।

বার্তা কক্ষ
২ জানুয়ারি, ২০১৯

শেয়ার করুন