Home / কৃষি ও গবাদি / চাঁদপুরের লবণ মিলগুলোর অস্তিত্ব বিপন্ন : ৩৬ টির মধ্যে চলছে দু’টো
Salt

চাঁদপুরের লবণ মিলগুলোর অস্তিত্ব বিপন্ন : ৩৬ টির মধ্যে চলছে দু’টো

চাঁদপুরের লবণ মিলগুলোর অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে যাচ্ছে। ধীরে ধীরে হলেও প্রতিযোগতামূলকভাবেই ৩৬টি মিল গড়ে উঠেছিল। এখন চলছে মাত্র ২টি। সর্বশেষ চলতি বছরের জানুয়ারিতে মালিকের মৃত্যুজনিত কারণে ১টি লবণ মিল বন্ধ হয়।

চাঁদপুর পুরাণ বাজারের ভেতর ডাকাতিয়ার তীরঘেঁষে এক সময় ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছিল এ মিলগুলো। নদীপথে যাতায়াত সুবিধার কারণে ব্যবসাও ছিল রমরমা।

ধান,পাট, মরিচ, সরিষা, তীল, পেঁয়াজ , রসুন, মুগ, খেসারি, মশারি,গম, ভূট্টা, ছোলা, ডাল, আলু ও অন্যান্য সকল প্রকার রবি ফসল ও শাক-সবজি উৎপাদনকারী চাঁদপুর জেলার সুখ্যাতি দেশজুড়ে রয়েছে। আর এ সব বেচা-কেনার প্রধান মোকাম এখনও চাঁদপুর পুরাণ বাজার।

যদিও কালের হালে অনেক কিছুই হারিয়ে যাচ্ছে। সে সাথে ব্যবসা-বাণিজ্যের সুবিধার্থে ও প্রতিযোগতামূলকভাবেই লবণ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোও গড়ে উঠে।

হাজার হাজার লবণ শ্রমিক দিন-রাত পালাক্রমে জীবন-জীবিকার জন্যে মিলগুলোতে কাজ করতো। আশি’র দশক থেকে এখনকার সময় পর্যন্ত এ বাক্যগুলো অনেকটা গল্পের মতোই।

পুরাণ বাজারের দোকান পাট,আড়ৎ,ব্যাংক-বীমা ও অন্যান্য অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানগুলোও হয়ে উঠতো জমজমাট। শত শত সাম্পান, কার্গো ও ইঞ্জিনচালিত নৌকা বা ট্রলার বোঝাই করে দেশের দক্ষিণাঞ্চল থেকে কাঁচা লবণ আসতো। সারি সারি ভাবে ডাকাতিয়ার তীরে ওই সব জলযানগুলো নোঙ্গর করতো। সাম্পানগুলো দিন-রাত ডাকাতিয়া নদীতে কাঁচা লবণ বোঝাই করে আসার চিত্র এখন রূপকথার গল্পের মতো।

১৯৮০ সালের পর থেকে চাঁদপুরে প্রচন্ড- নদীভাঙ্গন ও বন্যাসহ বেশ ক’টি প্রাকৃতিক বিপর্যয় দেখা দেয়ার কারণে পুরাণ বাজারের ব্যবসা-বাণিজ্যে মন্দাভাব দেখা দেয়। সম্ভবত ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালের ভয়াবহ বন্যায় লবণ মিলগুলোতে রক্ষিত কাঁচা লবণ ভেসে যাওয়ার কারণে মালিকরা অর্থনেতিকভাবে ব্যাপক লোকসানের সম্মুখীন হয় এবং ব্যাংক ঋণখেলাপি হয়ে পড়ে।

১৯৯০-১৯৯১ সালে দেশের আয়োডিনজনিত অভাবের সমস্যা সমাধানে ইউনিসিফের সার্বিক সহায়তায় চাঁদপুরের ৩৬ টি লবণ মিলের মধ্যে ২৫ টি মিলে আয়োডাইজসড প্ল্যাান্ট বসানো হয়। এতে প্রতিটির তৎকালীন মূল্য ছিল সাড়ে ৭ লাখ টাকা। এর সাথে কর্মরত শ্রমিক, মালিক ও মিল ম্যানেজারদের প্রশিক্ষণ ও ২০০০ সাল পর্যন্ত বিনামূল্যে আয়োডিন দেয়া হতো।

প্রাপ্ত সূত্রের তথ্য মতে, ১৯৮৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণি রসায়ন বিভাগের উদ্যোগে দেশব্যাপি একটি জরিপ কাজ পরিচালনা করা হয়।ঔ প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশের প্রায় ৮ কোটি ৪০ লাখ মানুষ আয়োডিনের অভাবে ভুগছে। যার হার দেশের জনসংখ্যার ৭০%।

অপরদিকে চাঁদপুর বিসিক কার্যালয় থেকে দেয়া জাতীয় একটি তথ্য বুলেটিন সূত্রে জানা যায়, ৫ কোটি ৬০ লাখ মানুষ দৃশ্য ও অদৃশ্যমান ঘ্যাগ বা গলগন্ড, বামনত্ব, বিকালাঙ্গতা, শারীরিক প্রতিবন্দ্বী বোবা বা কালা, হাবাগোবা, স্থুলবুদ্ধিসম্পন্ন, প্রভৃতি রোগে আক্রান্ত বা শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় শিশু জন্মগ্রহণ করতো। যার হার ৪৭%।

বর্তমানে দেশে ৬ লাখ মানুষ আয়োডিনের অভাবে মারাত্মক শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধকতায় ভুগছে। যার হার ০.০৫%। আয়োডিনের অভাবে প্রতিবছর ২ লাখ ৫০ হাজার মানুষ মানসিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হত। প্রতিবছর ৩৩ হাজার শিশু জন্মের প্রথম মাসেই মারা যেতো। প্রতিবছর ৪১ হাজার মৃত শিশু জন্ম নেয়ার তথ্য পাওয়া গেছে বলে এমন তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

চিকিৎসকদের মতে ,আয়োডিনের অভাবে ওই সব রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ায় স্বাভাবিক খাদ্যের পাশাপাশি খাবার লবণের সাথে আয়োডিন মিশ্রিত লবণ খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। একজন মানুষের সারা জীবনে ৩ থেকে ৪ গ্রাম আয়োডিন প্রয়োজন। যার পরিমাণ এক চামচেরও কম। প্রতিদিনই মানুষের শরীরে শুধুমাত্র কয়েক কণা আয়োডিনেব প্রয়োজন।

আয়োডিনের অভাবে মানুষের শরীরে মারাত্মক সমস্যা দেখা দেয়। শরীরে আয়োডিনের অভাবজনিত সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে- মানসিক প্রতিবন্ধি, বিকালাঙ্গ, টেরাচোখ, বামনত্ব বা বেটে, গলগন্ড বা ঘ্যাগ, মৃত শিশু জন্ম, অকাল গর্ভপাত, বুদ্ধিহীনতা, হাবাগোবা, কালো স্থুলবুদ্ধিসম্পন্ন, বোবা ও বধির।

সরকার জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে ১৯৮৯ সালে একটি আইনের মাধ্যমে আয়োডিনবিহীন লবণ উৎপাদন, ব্যবহার, পরিবহন ও বাজারজাত সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করে। যার ফলে সারা দেশে তৎকালীন ৩ শ’৭৬ টি লবণ মিলকে আয়োডাইজড প্ল্যাান্ট সংযুক্ত করে।

ফলে চাঁদপুরের ২৫ টি লবণ মিলও এর আওতায় চলে আসে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনকে সার্বিক তত্ত্বাবধানে আয়োডাইজডকরণের দায়িত্ব দেয়া হয়।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের দেয়া তথ্য মতে, বর্তমানে চাঁদপুরে মাত্র ২টি মিল চলছে। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে বিশেষ করে আর্থিক কারণে আরো ১টি মিল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে মেসার্স বিসমিল্লাহ ও জনতা সল্ট বর্তমানে চলমান রয়েছে। উন্নত প্রযুক্তির অভাবে উৎপাদিত লবণ প্রতিযোগিতামূলক বাজারে কাটতি নেই। এদিকে আয়োডিনের মূল্য অনেক বেশি বলে জানা যায় ।

উৎপাদন খরচের সাথে বিক্রি মূল্যে টিকতে পারছেনা ব্যবসায়ীগণ। উৎপাদিত লবণ বাজারজাত করতে খরচ বেশি হয়।দেশের অন্যান্য জেলার মিল মালিকদের বিনিয়োগ চাঁদপুরের তুলনায় অনেক বেশি। ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে তাদের চাঁদপুরের লবণ কেনাবেচা, খরিদদার কমে গেছে। আবার অন্য জেলায় উৎপাদিত লবণ চাঁদপুরের বাজারগুলোতে সায়লাব। যার ফলে মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে।

চাঁদপুরে বর্তমানে দু’টো মিলে দু’রকম লবণ উৎপাদন হচ্ছে। একটি হলো শিল্প লবণ ও ভোজ্য লবণ। প্রতি মাসে মিল দু’টোর উৎপাদন ভোজ্য ২৩০ থেকে ২৫০ মে.টন এবং শিল্প লবণ ৭০০ থেকে ৯ ০০ মে.টন।

চাঁদপুর জেলাবাসীর প্রতি মাসে গড়ে ২৫ মে.টন লবণ প্রয়োজন। এক সময় প্রতি কেজি লবণ আয়োডাইজড করতে খরচ হতো ১০ পয়সা আর বর্তমানে ২২ থেকে ২৫ পয়সা। এক কেজি আয়োডিনের বাজার মূল্য ১৫,০০০ টাকা। যা দিয়ে ১৪-১৫ মে.টন লবণে আয়োডিন মেশানো যায়। চাঁদপুরে লবণ ব্যবসায়ীর সংখ্যা কমে যাওয়ায় কক্সবাজার থেকে নৌ-পথে এককভাবে কাঁচা লবণ আনতে খরচ অনেক বেশি হয়ে পড়ে।

এদিকে চাঁদপুরের লবণের রং অনেকটা ঘোলাটে হওয়ায় মোল্লা বা এসিআই লবণের মত চাহিদা সৃষ্টি করতে পারছে না। ফলে ফলে দিন দিন ব্যবসায় মন্দাভাব তৈরি হচ্ছে ।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. দেলোয়ার হোসেন চাঁদপুর টাইমসকে বলেন, ‘চাঁদপুরের লবণ মিলগুলো টিকে থাকাই এখন চ্যালেঞ্জ। প্রতিযোগিতায় তারা হেরে যাচ্ছে। কাঁচা লবণ প্রাপ্তির সরকারি তালিকায় চাঁদপুরের মিলগুলো নেই। আধুনিক প্রযুক্তির অভাবও তাদের রযেছে। অনেক লবণ ব্যবসায়ী তাদের এ ব্যবসা ছেড়ে অন্য ব্যবসা পরিচালনা করছে কিংবা ব্যবসায়ী মনোভাব হয়তো নেই অথবা অন্য ব্যবসা পরিচালনা করছে।’

অন্য এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,‘আয়োডাইজড প্ল্যাান্টগুলো তুলে অন্য জেলায় বিভাগীয় নির্দেশে শিফট করা হয়েছে। চাঁদপুরে এখন দু’টো মিলের উৎপাদিত লবণের শতভাগই আয়োডাইজড। প্রতি কেজি লবলে ৩০Ñ৫০ পিপিএম আয়োডিন থাকা বাধ্যতামূলক। চাঁদপুর বিসিক প্রতি ৪ মাস পর পর মিলগুলোর উৎপাদিত লবণ মনিটরিং করছে।’

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের সহ মনিটরিং কর্মকর্তা নিতাই চন্দ্র গাইন চাঁদপুর টাইমসকে বলেন,‘ চাঁদপুরে পরিবহন খরচ বেশি। মিলগুলো এখনো সনাতন পদ্ধতিতে লবণ উৎপাদন করছে। বড় বড় মিলগুলোর সাথে তারা প্রতিযোগিতায় হেরে যাচ্ছে। তাদের মূলধন সংকটও রয়েছে। চাঁদপুরে লবণ ব্যবসার ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে জনগণের চাহিদা অনুয়ায়ী মান সম্মত লবণ বাজারজাত করতে উদ্যোগ নিতে হবে।’

এছাড়াও ওয়াসিং সিসটেমেটার ড্রায়ার,সেন্টিপিউজ মেশিন ও অটো ফেকার মেশিন এনে আধুনিক পদ্ধতিতে আসতে হবে। পাশাপাশি সামগ্রিক ব্যবসায়িক মনোভাব পরিবর্তনও করতে হবে বলে তিনি মতামত দেন।

প্রতিবেদক : আবদুল গনি
২৬ মার্চ ২০১৯