Home / সম্পাদকীয় / ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রিতে স্বচ্ছতা জরুরি

১০ টাকা কেজি চাল বিক্রিতে স্বচ্ছতা জরুরি

শেখ হাসিনার বাংলাদেশ-ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ প্রকল্প খাদ্য নিরাপত্তায় চাঁদপুরে ৮ উপজেলায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিতরণের একটি প্রকল্প চালু করে খাদ্য বিভাগ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ প্রকল্প খাদ্য নিরাপত্তায় চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় ১০ টাকা কেজি দরে অর্ধ-লক্ষাধিক হতদরিদ্র পরিবারকে এ প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে । তাই ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রির স্বচ্ছতা একান্তই অপরিহার্য।

আওয়ামী লীগ সরকারের নির্বাচনি ইশতেহারের অঙ্গীকার বাস্তবায়নের ভিত্তিতে এ প্রকল্পটি চালু করেন। ৭ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুড়িগ্রামের চিলমারি উপজেলায় এ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন ।

দেশের তথাকথিত মঙ্গার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় এমন এলাকায় ৫ মাস সরকার ১০ টাকা কেজি দরে চাল হতদরিদ্র পরিবারে মাঝে বিতরণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। প্রথম ৩ মাস হলো মার্চ, এপ্রিল ও মে এবং দ্বিতীয় ধাপে অক্টোবর ও নভেম্বর
একটি হতদরিদ্র পরিবারের জন্য মাসে ১০ টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি চাল দেয়ার নির্দেশ রয়েছে । এ জন্যে প্রতিমাসে চাঁদপুর জেলা খাদ্য বিভাগ বরাদ্দ দিচ্ছে ১ হাজার ৫ শ’ ৯৪ মে.টন চাল ।

প্রতি ৫শ’কার্ডের বিপরীতে ১ জন করে ডিলার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সরকারিভাবে নির্দেশ মতে, স্ব স্ব এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা,পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে কার্ডধারী হতদরিদ্র হতে হবে, নারী প্রধান তালাক প্রাপ্তা,বিধবা,স্বামী পরিত্যাক্তা ও দু:স্থ শিশুদের অগ্রধিকার ভিত্তিতে বিবেচনায় এনে ইউপি প্রতিনিধিদেরকে তালিকা কর্তৃক চাল প্রদান করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
তবে কোনো মতেই ভিজিডি কার্ডধারীকে এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না বলে পরিষ্কারভাবে খাদ্য বিভাগ জানিয়েছে ।

অথচ নানা অনিয়মের মধ্য দিয়েই জনহিতকর সরকারি এ প্রকল্পটি চলছে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

কোনো কোনো জনপ্রতিনিধিরা অগ্রিম কার্ডপ্রতি ২শ’থেকে ৩ শ’টাকা আগেভাগেই রেখে কার্ড বিতরণ, অনুমোদন বিহীন তালিকায় চাল বিতরণ, ভিজিডি কার্ডধারীকে অন্তর্ভুক্ত করা, ওজনে চাল কম দেয়ার মত অভিযোগও রয়েছে।
এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীরা নাম কাটা যাবে এমন ভয়ে কেউ সাংবাদিকদের কাছে মুখ খুলছেন না ।

খাদ্য বিভাগের একজন কর্মকর্তা চাঁদপুরের বিষয়টি সরাসরি স্বীকার না করলেও তিনি বলেন ‘যেখানে ভুক্তভোগীদের তালিকা ত্রুটিপূর্ণ সে ক্ষেত্রে প্রকল্পটির সফলতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়া স্বাভাবিক। তালিকা অনুমোদন না করেই চাল বিতরণ হয়ে যাচ্ছে।’ তাই প্রকল্পটির সফলতার প্রথম ধাপ হচ্ছে ভুক্তভোগীদের স্বচ্ছ তালিকা।

চাঁদপুরের ৮৮ টি ইউনিয়নে ১শ’২৪ জন ডিলার ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণের জন্যে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় জানান। চাঁদপুরে ৫ অক্টোবর সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি সদরের বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

সুতরাং , আওয়ামী লীগ সরকারের নির্বাচনি ইশতেহারের অঙ্গীকার বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চালকৃত এ প্রকল্পটির সঠিক বাস্তবায়ন ও স্বচ্ছতা জরুরি ।

সম্পাদকীয় : আপডেট, বাংলাদেশ সময় ৭:০০ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৬, বৃহস্পতিবার
্ডিএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ফরিদগঞ্জে উন্নয়ন মেলা উদ্বোধনে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

দেশব্যাপী ...