Home / অর্থনীতি / তথ্য প্রযুক্তি ব্যাংকের দক্ষতা ও মুনাফা বাড়াচ্ছে

তথ্য প্রযুক্তি ব্যাংকের দক্ষতা ও মুনাফা বাড়াচ্ছে

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তির (আইসিটি) কারণে দেশে প্রথাগত ব্যাংকিং মাধ্যমের লেনদেনকে ছাড়িয়ে গেছে অনলাইনভিত্তিক লেনদেন। এর ফলে ব্যাংক খাতের সামগ্রিক কর্মদক্ষতা ও উৎপাদনশীলতা বাড়ছে, অন্যদিকে খাতটির মুনাফা বৃদ্ধিতে তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। নির্ভুল লেনদেনের মাধ্যমে গ্রাহকের সন্তুষ্টি বাড়াতেও আইসিটির ব্যবহার অপরিহার্য হয়ে উঠছে।

এমন মতামত উঠে এসেছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) এক গবেষণায়। ‘ব্যাংকের ব্যবসা ও মুনাফা বৃদ্ধিতে আইসিটির প্রভাব’ শীর্ষক এ গবেষণা করেছেন বিআইবিএমের সহযোগী অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান আলম, শিহাব উদ্দিন খান ও সহকারী অধ্যাপক কানিজ রাব্বি।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রথাগত ব্যাংকিং মাধ্যমে এখন বছরে গড়ে ১৭০ কোটি বার লেনদেন হচ্ছে। আর আইসিটির কারণে অনলাইনে ২০০ কোটি বারের বেশি লেনদেন হচ্ছে। প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে ব্যাংক খাতের একজন কর্মী এখন বছরে গড়ে ১০ হাজার লেনদেন সম্পন্ন করছেন। ২০০০ সালের আগ পর্যন্ত ব্যাংকের একজন কর্মীর গড় লেনদেনের পরিমাণ ছিল পাঁচ হাজারের কম। অর্থাৎ প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে গত দেড় দশকে ব্যাংকের কর্মীদের কর্মদক্ষতা দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে।

আইসিটিতে বিনিয়োগ করা ব্যাংক খাতের জন্য কতটুকু লাভজনক, মূলত সে বিষয় সামনে রেখে গবেষণাটি করা হয়েছে। গবেষণার প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত ২১টি ব্যাংক থেকে নেওয়া হয়েছে। আর সেকেন্ডারি বা প্রকাশিত তথ্য-উপাত্ত আর্থিক খাতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিবেদন থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ছাড়া ব্যাংক ও আইসিটির বিষয়ে গ্রাহকের মতামত জানতে দেশব্যাপী ৫০০ লোকের সাক্ষাৎকারও নেওয়া হয়েছে।

ব্যাংকের আইসিটি খাতে এক টাকা খরচ করলে তা কতটা মুনাফা নিয়ে আসে, সে বিষয়টিও গবেষণায় তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, আইসিটিতে ১ টাকা বিনিয়োগ করলে ব্যাংকের জন্য তা ১৩৬ টাকার সমান উৎপাদনশীলতা তৈরি করে। এর বিপরীতে প্রযুক্তিবহির্ভূত খাতে ১ টাকা খরচ করলে সেটি ৫৮ টাকার সমপরিমাণের উৎপাদনশীলতা নিয়ে আসে।

একইভাবে আইসিটি বিষয়ে জ্ঞান আছে, এমন একজন কর্মীর পেছনে ১ টাকা খরচ করলে ব্যাংকের আয় বাড়ে ২৫ টাকার সমান। সাধারণ একজন কর্মীর পেছনে এক টাকা খরচ করা হলে ব্যাংকের আয় বাড়ে ছয় টাকা। অর্থাৎ আইসিটিতে দক্ষ একজন কর্মীর পেছনে ব্যাংকের বিনিয়োগ চার গুণ বেশি লাভজনক।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯০ সালের পর থেকে বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতে ধীরে ধীরে আইসিটির ব্যবহার শুরু হয়। সে সময় ব্যাংকের একজন কর্মী গড়ে ৪১ কোটি টাকা লেনদেন করতেন। সেটি ২০১৫ সালে প্রায় চার গুণ বেড়ে ১৬০ কোটি টাকা হয়েছে। অর্থাৎ লেনদেন সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে একজন কর্মীর আর্থিক লেনদেনের দক্ষতাও এ সময়ে প্রায় চার গুণ বেশি বেড়েছে।
কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ব্যাংকের মুনাফাও এ সময় বেড়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। ১৯৯০ সালে বেসরকারি ও বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলো মুনাফা করলেও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের লোকসানের কারণে সামগ্রিক ব্যাংক খাত লোকসানের মধ্যে ছিল। সেই অবস্থা থেকে ২০০০ সালে ব্যাংক খাতের গড় মুনাফা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৫৫ কোটি টাকায়। এ মুনাফা ২০১৫ সালে সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

২৫ বছরের বেশি সময়ে ব্যাংক খাতের মুনাফা ও কর্মদক্ষতা বৃদ্ধিতে আইসিটি খাতের ভূমিকা নির্ধারণে বেশ কয়েকটি গাণিতিক সমীকরণ গবেষণায় ব্যবহার করা হয়েছে। প্রতিবেদনটি তৈরিতে মতামতভিত্তিক যে জরিপ করা হয়েছে, সেখানে গড়ে ৬১ শতাংশ গ্রাহক অনলাইন ব্যাংকিংয়ের বিষয়ে নিজেদের সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন। সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ গ্রাহক বলেছেন, তথ্যপ্রযুক্তির কারণে ব্যাংকের লেনদেনে ভুলের পরিমাণ কমে এসেছে। তবে অনলাইন লেনদেন করতে গিয়ে কোনো সমস্যার মুখে পড়লে তা সমাধানে ধীরগতির বিষয়ে গ্রাহকেরা তাঁদের অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন।

গবেষণার কাজটিতে নেতৃত্ব দেওয়া বিআইবিএমের সহযোগী অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান আলম প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশের ব্যাংক খাতে আইসিটির গুরুত্ব নির্ধারণে গবেষণাটিতে প্রথমবার গাণিতিক সমীকরণের ব্যবহার করা হয়েছে। ব্যাংক ও আর্থিক খাতের নীতিনির্ধারকদের জন্য গবেষণাটি তাই কার্যকর ভূমিকা রাখবে। (প্রথম আলো)

নিউজ ডেস্ক ।। আপডটে, বাংলাদশে সময় ০৭ : ০০ এএম, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৬ সোমবার
এইউ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কাশিমপুর কারাগারে মুফতি হান্নানের মৃত্যু পরোয়ানা পৌঁছেছে

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ...